বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > মিলবে জামাই আদর, রাজ্যে পৌঁছনোর আগেই সরকারি অতিথি ঘোষণা কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলকে
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

মিলবে জামাই আদর, রাজ্যে পৌঁছনোর আগেই সরকারি অতিথি ঘোষণা কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলকে

  • মাস ঘুরতে না ঘুরতে কী করে মতি বদলাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের?

স্নিগ্ধেন্দু ভট্টাচার্য

আর ঝগড়া নয়। ঘূর্ণিঝড় আমফানের ক্ষয়ক্ষতি পরিদর্শনে কেন্দ্রের পাঠানো প্রতিনিধিদলকে জামাই আদর করবে রাজ্য সরকার। গত এপ্রিলে করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে এসে রাজ্য সরকারের তুমুল অসহযোগিতার পেয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেছিলেন আরেকটি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। প্রশ্ন উঠছে, মাস ঘুরতে না ঘুরতে কী করে মতি বদলাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের?

বৃহস্পতিবার নবান্নের বিপর্যয় মোকাবিলা ও অসামরিক প্রতিরক্ষা দফতরের তরফে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয়েছে, ‘কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যদের রাজ্যের সরকারি অতিথি ঘোষণা করা হল। তাই তাদের ভিআইপির মতো যাবতীয় সৌজন্য ও সুবিধা দেওয়ার অনুরোধ রইল।’

সঙ্গে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘সাত সদস্যের প্রতিনিধিদল ঘটনাস্থলে গিয়ে আমফানের ক্ষয়ক্ষতি খতিয়ে দেখে কেন্দ্রীয় সাহায্যের জন্য সুপারিশ করবে।’

আমফানের ক্ষয়ক্ষতি খতিয়ে দেখতে বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের যুগ্ম সচিব অনুজ শর্মার নেতৃত্বে আসছে ৭ সদস্যের প্রতিনিধিদল। দলে এছাড়াও রয়েছেন কেন্দ্রীয় কৃষি, জলসম্পদ, শক্তি, পরিবহণ, মৎস্য দফতরের আধিকারিকরা। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহার সঙ্গে বৈঠকে বসবেন তাঁরা। শুক্রবার তাঁরা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করবেন। এর পর শনিবার ফের রাজ্যের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন তাঁরা। 

ঘূর্ণিঝড় আমফান মোকাবিলায় ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গকে ১,০০০ কোটি টাকা সাহায্য ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গত ২২ মে তিনি আমফান বিধ্বস্ত এলাকা আকাশপথে পরিদর্শন করেন। সঙ্গে ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও জগদীপ ধনখড়। 

কিন্তু কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতি বদলে অবাক অনেকে। গত এপ্রিলে করোনা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এসে নবান্নের চরম অসহযোগিতার মুখে পড়তে হয়েছিল কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলকে। বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা বলেন, ‘সেবার করোনা তথ্য গোপন ধরা পড়ে যাবে এই ভয়ে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সঙ্গে অসহযোগিতা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সুপারিশের ওপর মোটা টাকা পেতে পারে রাজ্য সরকার। তাই জামাই আদরের ব্যবস্থা করেছেন তিনি।’

 

বন্ধ করুন