বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Justice Abhijit Gangopadhyay: যৌন হেনস্থা বিরোধী আইনের অপব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের

Justice Abhijit Gangopadhyay: যৌন হেনস্থা বিরোধী আইনের অপব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি)

দূর্নীতির বিরুদ্ধে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের একের পর রায় এক জনমানসে সাড়া ফেলেছে। সাড়া ফেলেছে রাজনৈতিক মহলেও। শনিবার তিনি আমন্ত্রিত ছিলেন রামমোহন রায়ের ২৫১তম জন্মদিন উপলক্ষে রামমোহন লাইব্রেরিতে আয়োজিত আলোচনা সভায়।

ভারতীয় সংবিধান কার্যকরী হয়েছে ১৯৫০ সালে। কিন্তু নারী সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আইন হয়েছে তারও বহু বছর পর। উদাহরণ, মাতৃত্ব কল্যাণ আইন। সংবিধান কার্যকরী হওয়ার ১১ বছর পর তৈরি হয় এই আইন। ১৯৬১ সালে। কিন্তু আই তৈরি হলে সেই আইনের সুবিধা সবার কাছে পৌঁছয় না।  আবার কর্মক্ষেত্রে যৌন হেনস্থা বিরোধী আইন রয়েছে। কিন্তু তার অপব্যবহারও হচ্ছে।  শনিবার রাজা রামমোহন রায়ের জন্মদিনের প্রক্কালে ভারতীয় সংবিধান ও নারীদের অধিকার নিয়ে এক আলোচনা সভায় এমনই মত প্রকাশ করলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

দূর্নীতির বিরুদ্ধে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের একের পর রায় এক জনমানসে সাড়া ফেলেছে। সাড়া ফেলেছে রাজনৈতিক মহলেও। শনিবার তিনি আমন্ত্রিত ছিলেন রামমোহন রায়ের ২৫১তম জন্মদিন উপলক্ষে রামমোহন লাইব্রেরিতে আয়োজিত আলোচনা সভায়। অনুষ্ঠানে বিচারপতি বলেন, 'আইন থাকলেও গর্ভাবস্থায় ছুটি পান না অনেক মহিলা। কারণ দারিদ্র। নীচের স্তরে অন্যায় চলতেই থাকে।' তবে তিনি মনে করেন,'আইনকে সব মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়াটাই বিচার বিভাগের পরীক্ষা।'

এই প্রসঙ্গে তিনি সভার শ্রোতাদের মনে করিয়ে দেন, গৃহহিংসা আইন চালু হতে ২০০৫ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। আবার ২০১৩ সালে তৈরি হয় কর্মক্ষেত্রে যৌন হেনস্থা প্রতিরোধ আইন। তবে আইন থাকলেও তা নিয়ে সচেতনতার অভাব রয়েছে। 

সমাজের ভয়ে অনেক ক্ষেত্রে মহিলারা অভিযোগ জানাতেও দেরি করেন। আবার কর্মক্ষেত্রে যৌন হেনস্থা আইনের অপব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন বিচারপতি। তিনি বলেন, 'কর্মক্ষেত্রে যৌন হেনস্থায় অনেক মহিলা যতটা সম্ভব সহ্য করে নেওয়ার পর অভিযোগ জানান। আবার এর অপব্যবহারও হয়। কোনও বিশেষ সুবিধা নেওয়ার জন্য এটির ব্যবহার করা হয়।' বিচারপতির মতে, অভিযোগগুলি ভালো করে খতিয়ে দেখে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারে অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটি।

তবে দেরিতে আইন তৈরি হলেও এই ধরনের আইনগুলির বিস্তর উপযোগিতা রয়েছে। সংবিধানে নারী-পুরুষ সমানাধিকারের কথা বলা হলেও মেয়ে ও শিশুদের জন্য বিশেষ আইন তৈরি করার কথা বলা হয়েছে। সেই আইনের যথাযথ ব্যবহার মেয়েদের এগিয়ে চলার পথ আরও প্রশস্ত করবে বলে মনে করেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়।

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

এখনও ডাক্তার হল না, এদিকে ট্রেনের মধ্যেই সহযাত্রীর সন্তানপ্রসব করাবে রানি! টেস্টে সব থেকে বেশি উইকেট, ওয়ালসকে টপকে সাতে লিয়ন, চোখ রাখুন সেরা ১০-এ শুক্রে ছক্কা সোনার, নতুন মাসের প্রথম দিনই দাম বাড়ল হলমার্ক হলুদ ধাতুর ‘হানিমুন’ নিয়ে কৌতুক! লাইভ শোয়ে উপস্থাপককে ঠাসিয়ে চড় মারলেন পাকিস্তানি গায়িকা ‘‌হাতি মানুষ মারলে ওঁদের কানে কান্না পৌঁছয় না’‌, পরিবেশ কর্মীদের তুলোধনা মমতার সোহমের সঙ্গে জোরদার প্রেম চর্চা, তার মাঝেই শোলাঙ্কির ঘোষণা ‘আমার জীবনে ও…’ নজরে মহিলা ভোট, BJP-কে টেক্কা দিতে রাজ্যে সস্তায় গ্যাস বিক্রির ঘোষণা সরকারের সাজে সেরা নীল-তৃণা, বেঙ্গল স্টাইল অ্যাওয়ার্ড পেল সৃজিত-শ্রাবন্তী-সুস্মিতারা এক্স হ্যান্ডেলের বায়ো থেকে কুণাল মুছলেন তৃণমূল মুখপাত্রের পরিচয়, অভিমানের জের! পঞ্জাব-হরিয়ানা সীমানায় কৃষক মৃত্যু হয়েছিল আগ্নেয়াস্ত্রেই, প্রকাশ্যে রিপোর্ট

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.