বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > CU-‌র স্বাস্থ্য ভবনকে করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ছে পুরসভা
CU-‌র স্বাস্থ্য ভবনকে করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ছে পুরসভা   ফাইল ছবি : পিটিআই (PTI)
CU-‌র স্বাস্থ্য ভবনকে করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ছে পুরসভা   ফাইল ছবি : পিটিআই (PTI)

CU-‌র স্বাস্থ্য ভবনকে করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ছে পুরসভা

  • কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য বিভাগের একটি ভবন রয়েছে মুক্তারাম বাবু স্ট্রিটে। সেই ভবনকেই ৭৫ শয্যার করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ে তোলা হবে।

শহরে করোনা হাসপাতাল গড়ার উদ্যোগ নিল কলকাতা পুরসভা। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য ভবনকে করোনা হাসপাতালে রুপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুরসভা। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আকাশ ছোঁওয়া। মৃত্যুর হারও বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা পরিকাঠামো বাড়ানোর জন্যই এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছে পুর কর্তৃপক্ষ।

পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, এবার কোভিড হাসপাতাল হিসাবে গড়ে তোলা হবে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য বিভাগের ভবনকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ‌এই ভবন রয়েছে মুক্তারাম বাবু স্ট্রিটে। সেই ভবনকেই ৭৫ শয্যার করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ে তোলা হবে।

বৃহস্পতিবার ওই ভবন পরিদর্শন করতে গিয়ে পুর প্রশাসক মণ্ডলীর সদস্য অতীন ঘোষ জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের এই স্বাস্থ্য ভবনটিতে চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামো রয়েছে।সেইজন্যে এই ভবনটিকে করোনা হাসপাতাল হিসাবে গড়ে তোলার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে। তবে এখানে চিকিৎসা পরিষেবার চালু করতে গেলে, অন্যান্য হাসপাতালের সাহায্যের প্রয়োজন পড়বে। 

তিনি আরও জানান, ইতিমধ্যেই ন্যাশনাল মেডিক্যাল ও আর জি কর মেডিক্যালের সঙ্গে এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক পর্যায় কথা বলা হয়ে গিয়েছে। এবার কীভাবে তারা সাহায্য করতে পারবে, এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত তারাই নেবে। তবে ঠিকভাবে চিকিৎসা পরিষেবা চালাতে আরও সরকারি-‌বেসরকারি হাসপাতালের সঙ্গে কথা হচ্ছে। পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, হাসপাতালগুলোতে করোনা শয্যার ঘাটতি মেটাতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি স্বাস্থ্য ভবনের তরফে বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা বাড়াতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।একইসঙ্গে স্বাস্থ্য ভবন স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিল যে, রাজ্যের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপাল ছাড়াও জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকরা হাসপাতালগুলোতে শয্যা বাড়ানোর বিষয়ে নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। সেক্ষেত্রে কাউকেই স্বাস্থ্য ভবনের অপেক্ষায় থাকতে হবে না।আবার বেসরকারি নার্সিংহোম ও হাসপাতালগুলোকেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে, তাদের মোট শয্যা সংখ্যার ৬০ শতাংশ করোনা রোগীদের জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে।

 

বন্ধ করুন