বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > খাবার মুখে রোচেনি, বিলাসবহুল ফ্ল্যাট থেকে জেলের ২ নম্বর ঘরে অর্পিতা, কেমন কাটছে?

খাবার মুখে রোচেনি, বিলাসবহুল ফ্ল্যাট থেকে জেলের ২ নম্বর ঘরে অর্পিতা, কেমন কাটছে?

বিলাসী জীবনে অভ্যস্ত ছিলেন অর্পিতা মুখোপাধ্যায়।

তাঁর প্রাণ সংশয় রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল। সেকারণে তার খাবার, জল পরীক্ষা করেই দেওয়া হচ্ছে। তবে বিলাসী জীবন থেকে একেবারে জেলের জীবন, নিঃসন্দেহে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন অর্পিতা।

একাধিক ফ্ল্যাট। আর সবটাই চূড়ান্ত বিলাসবহুল। অভিজাত আবাসনের সেই ফ্ল্যাটেই থাকতেন পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়। ওয়ার্ডরোবে গাদা গাদা টাকা। গ্যারাজে সারি সারি গাড়ি। কথায় কথায় বিদেশযাত্রা। দামি মেক আপ। দামি দামি খাবারে অভ্যস্ত অর্পিতা। সেই অর্পিতাই এখন জেল হেফাজতে। আলিপুর মহিলা সংশোধনাগারের ২ নম্বর ঘরে রাত কাটছে অর্পিতার।

চরম বিলাসী জীবন থেকে সংশোধানাগারের ঘর। সূত্রের খবর, শুক্রবারই প্রথম রাতটা তিনি সংশোধনাগারে কাটান। একেবারে বিষন্ন অবস্থায় ছিলেন তিনি। কোনও খাবার খেতে চাননি। তবে শনিবার সকালে লিকার চায়ে গলা ভেজান তিনি। হালকা একটু জলখাবারও মুখে তোলেন। ড্রাই ফ্রুট, ফলের রস ছাড়া যিনি ব্রেকফাস্ট করতেন না বলে খবর, তিনিই সকালে দেখলেন জেলের খাবার।

সূত্রের খবর, যে ঘরে অর্পিতা ছিলেন সেখানেই বিগতদিনে সারদাকাণ্ডে অভিযুক্ত দেবযানী মুখোপাধ্যায় থাকতেন। লম্বা টানা ঘর। সেই বড় ঘরেই ঠাঁই পেয়েছেন অর্পিতা। কিন্তু জেলে গিয়ে কি কান্নাকাটি করছেন? সূত্রের খবর, এজলাসে যাওয়ার পথে বেশ ভেঙে পড়েছিলেন অর্পিতা। প্রশ্নের উত্তরে ভারী গলায় বলেছিলেন, ইডিকে যা স্টেটমেন্ট দেওয়ার দিয়েছেন। তবে জেলে গিয়ে সেই কান্নাকাটির রেশ থেকে গিয়েছিল।

ভালো আচরণ করার জন্য় যেসমস্ত ঘর বন্দিদের জন্য় বরাদ্দ করা হয় তারই একটি ঘর বরাদ্দ হয়েছে অর্পিতার জন্য। তাঁর প্রাণ সংশয় রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল। সেকারণে তার খাবার, জল পরীক্ষা করেই দেওয়া হচ্ছে। তবে বিলাসী জীবন থেকে একেবারে জেলের জীবন, নিঃসন্দেহে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন অর্পিতা।

বন্ধ করুন