বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বর্ষার মুখে বোধদয়, কলকাতায় ফুটপাথে খাবার দোকানে বাধ্যতামূলক ডাস্টবিন
ফিরহাদ হাকিম

বর্ষার মুখে বোধদয়, কলকাতায় ফুটপাথে খাবার দোকানে বাধ্যতামূলক ডাস্টবিন

  • ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, এখন ফুটপাথে খাবারের দোকানদারের সমস্ত জঞ্জাল নিকাশি নালার মুখে ফেলে যান। যার ফলে নিকাশি নালা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এবার থেকে তাই কলকাতায় ফুটপাথের হকারদের জন্য ডাস্ট বিন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

কলকাতা পুর এলাকায় ফুটপাথে খাবারের দোকান করতে গেলে বাধ্যতামূলকভাবে রাখতে হবে ডাস্ট বিন। শনিবার পুরসভার মাসিক অধিবেশনে একথা জানিয়েছেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। সম্প্রতি কলকাতায় প্লাস্টিক দূষণ রুখতে একাধিক পদক্ষেপ করেছে পুরসভা। শহরের মেয়র তথা রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

কলকাতায় ইতিমধ্যে পৌঁছেছে বর্ষা। শুরু হয়েছে বর্ষার বৃষ্টি। আর তার সঙ্গে শুরু হয়েছে জল জমার ভোগান্তি। এই নিয়ে প্রতি বছরই নাগরিকদের সমালোচনার মুখে পড়তে হয় কলকাতা পুরসভাকে। আর জল জমার সমস্যার সঙ্গে যুঝতে গিয়ে পুরসভার সব থেকে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে প্লাস্টিক। তাই শহরে সব ধরণের প্লাস্টিক ব্যবহারে রাশ টানতে চাইছে পুরসভা। যে টুকু প্লাস্টিক ব্যবহার হচ্ছে তাও সঠিকভাবে প্রক্রিয়াকরণ করতে চায় তারা। মূল লক্ষ্য নিকাশি নালায় যেন না ঢোকে প্লাস্টিক। সেজন্যই খাবারের দোকানে ডাস্ট বিন বাধ্যতামূলক করার ভাবনা বলে মনে করা হচ্ছে।

ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, এখন ফুটপাথে খাবারের দোকানদারের সমস্ত জঞ্জাল নিকাশি নালার মুখে ফেলে যান। যার ফলে নিকাশি নালা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এবার থেকে তাই কলকাতায় ফুটপাথের হকারদের জন্য ডাস্ট বিন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ওই ডাস্টবিনেই ফেলতে হবে দোকানের যাবতীয় জঞ্জাল। পরদিন সকালে পুরসভার সাফাই কর্মীরা ডাস্টবিন থেকে জঞ্জাল নিয়ে যাবেন।

এছাড়া কলকাতা পুর এলাকায় ফুটপাথের দোকানের ছাউনি হিসাবে ব্যবহার করা যাবে না পলিথিন শিট। এর বদলে টিনের ছাউনি বা বড় ছাতা ব্যবহার করতে হবে। ফিরহাদ জানিয়েছেন, ওই পলিথিন পরে নিকাশি নালা বন্ধ করে দেয়। তাছাড়া সহজদাহ্য পলিথিনে কোনও কারণে আগুন লাগলে বড় ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। বাগড়ি মার্কেটের আগুন এই ধরণের পলিথিন থেকেই লেগেছিল বলে মনে করা হয়।

 

বন্ধ করুন