বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বাসে করে বাজারে বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের টিকা দেবে কলকাতা পুরসভা
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

বাসে করে বাজারে বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের টিকা দেবে কলকাতা পুরসভা

  • ৩ জুন থেকে কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় চলে যাবে ভ্যাকসিনবাহী এসি বাস। তাতে থাকবেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। নির্দিষ্ট এলাকায় ব্যবসায়ীদের টিকাকরণ হবে সেই বাসে।

কেন্দ্রের কো-উইন অ্যাপকে বাদ দিয়ে কলকাতায় করোনার টিকাকরণ শুরু করেছে রাজ্য সরকার। এবার শহরের ব্যবসায়ীদের টিকা দিতে বিশেষ গাড়ি চালু করতে চলেছে তারা। তাতেও টিকা মিলবে কোনও পূর্ব নথিভুক্তিকরণ ছাড়াই। মঙ্গলবার কলকাতা পুরসভায় এক বৈঠকে এমনই সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ৩ জুন থেকে শুরু হবে এই প্রকল্প। 

পুরসভার দাবি, কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় ব্যবসায়ীরা টিকা নিচ্ছেন না। বলছেন, দোকান ছেড়ে আসা সম্ভব নয়। ওদিকে তাঁদেরই টিকা দেওয়া সবার আগে দরকার। সেই সমস্ত ব্যবসায়ীদেরই সবার আগে টিকা দেওয়া প্রয়োজন। তাঁরা রোজ হাজার হাজার মানুষের সঙ্গে মেলামেশা করেন। ফলে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা বেশি। 

সেজন্য ৩ জুন থেকে কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় চলে যাবে ভ্যাকসিনবাহী এসি বাস। তাতে থাকবেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। নির্দিষ্ট এলাকায় ব্যবসায়ীদের টিকাকরণ হবে সেই বাসে। সেজন্য আগে থেকে করতে হবে না কোনও নাম নথিভুক্তিকরণ। তবে কোনও ব্যক্তি ব্যবসায়ী কি না তা কী ভাবে চিহ্নিত হবে তা জানায়নি পুরসভা। এই সমস্ত ব্যক্তিদের দ্বিতীয় ডোজের ব্যবস্থা কী করে হবে তাও অজানা।

টিকাকরণের পর গ্রহীতাদের নিয়ম মেনে বাসেই বসিয়ে রাখা হবে। কোনও উপসর্গ দেখা দিলে ভর্তি করা হবে কাছাকাছি হাসপাতালে। প্রথম দিন পোস্তা যাওয়ার কথা বাসটির। 

বিরোধীদের দাবি, ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন বণ্টনে স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠেছে। রাজ্যে বিভিন্ন জায়গায় শাসকদলের কাউন্সিলরের সুপারিশপত্র দেখাতে তবে ভ্যাকসিন মিলছে বলে অভিযোগ। এই ভাবে নথিভুক্তিকরণ ছাড়া টিকা দিলে সেই স্বজনপোষণের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিজেপির দাবি, কেন্দ্রের বেঁধে দেওয়া বিধিনিয়ম মেনে টিকা দিক রাজ্য। এতে দুর্নীতির সম্ভাবনা কমার পাশাপাশি টিকা গ্রহীতারাও নিশ্চিন্ত হবেন।

 

বন্ধ করুন