বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > রাজ্যের অর্থসচিবকে তলব করল কলকাতা হাইকোর্ট, পুরকর্মীরা পাননি অবসর ভাতা
কলকাতা হাইকোর্ট (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

রাজ্যের অর্থসচিবকে তলব করল কলকাতা হাইকোর্ট, পুরকর্মীরা পাননি অবসর ভাতা

  • বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে আগামী শুক্রবার হাজিরা দিতে হবে অর্থসচিব এবং আধিকারিকদের।

রাজ্যের পুরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে কলকাতা হাইকোর্ট তলব করল রাজ্যের অর্থসচিবকে। কারণ চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পরেও পুরকর্মীরা বকেয়া পাননি। দীর্ঘদিন এই প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত হওয়ায় সেই পুরকর্মীরা আদালতের দ্বারস্থ হন। তার প্রেক্ষিতেই আদালত অবমাননা মামলায় রুল ইস্যু হল রাজ্যের অর্থসচিব পুনিত যাদবের বিরুদ্ধে। এমনকী রুল ইস্যু হয়েছে বহরমপুরের মহকুমাশাসক, বহরমপুর পুরসভা এক্সিকিউটিভ অফিসার এবং বহরমপুরের প্রশাসক বোর্ড প্রধানের বিরুদ্ধেও। বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে আগামী শুক্রবার হাজিরা দিতে হবে অর্থসচিব এবং আধিকারিকদের।

আদালত সূত্রে খবর, স্বামী পুরসভার চাকরি থেকে অবসর নিয়েছেন। কিন্তু তাঁর প্রাপ্য পাননি। এই নিয়ে বহুবার আবেদন করেন স্ত্রী ডলি সরকার। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। তখন কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন তাঁর স্ত্রী। সেই মামলায় প্রথমে তাঁর প্রাপ্য মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। অথচ তাতে কান দেয়নি পুরসভা। তাই অবসরপ্রাপ্ত কর্মীর স্ত্রী আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করেন। তার প্রেক্ষিতেই কলকাতা হাইকোর্ট রুল ইস্যু করেছে।

ঠিক কী ঘটেছে?‌ জানা গিয়েছে, ২০০০ সাল থেকে বহরমপুর পুরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন নীলরতন আঢ্য। অভিযোগ, তিনি আমলে কমপক্ষে ৪০০ পুরকর্মী অবসর নেন। কিন্তু তাঁদের বকেয়া প্রাপ্য মেটানো হয়নি। অথচ ২০১৯ সাল থেকে যে পুরবোর্ড চলছে লেই সময়ে অবসর নেওয়া কর্মীরা সঠিক সময়েই প্রাপ্য পাচ্ছেন। যাঁরা বকেয়া প্রাপ্য পাননি, তাঁরা কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন। সেখানেরই একটি মামলা ডলি সরকারের।

এই পরিস্থিতিতে বহরমপুর পুরসভা কলকাতা হাইকোর্টের কাছে আবেদন করে বলেছে, প্রায় ৮ থেকে ১০ কোটি টাকা এখনও কর্মীদের কাছে বকেয়া রয়েছে। যা মেটানোর সামর্থ্য পুরসভার নেই। তাই রাজ্য সরকার পুরসভাকে আর্থিক সাহায্য করুক। তবে তার আগেই এই মামলায় রাজ্যের অর্থসচিবকে রুল ইস্যু করে তলব করেথে কলকাতা হাইকোর্ট।

বন্ধ করুন