বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মানিকতলায় ১৫ খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত কলকাতা পুলিশের
মানিকতলায় ১৫ খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত কলকাতা পুলিশের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
মানিকতলায় ১৫ খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত কলকাতা পুলিশের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

মানিকতলায় ১৫ খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত কলকাতা পুলিশের

  • তল্লাশি চালিয়ে ৫২ কেজি ওজনের ১৩টি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১৫ কেজি ওজনের ২টি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত করা হয়।

অক্সিজেন সিলিন্ডারের কালোবাজারি রুখতে এবার মানিকতলায় অভিযান চালাল কলকাতা পুলিশ। বাজেয়াপ্ত করা হল ১৫ টি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার। সম্প্রতি অক্সিজেন সিলিন্ডারের কালোবাজারি রুখতে বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ।মূলত তাঁদেরই উদ্যোগে এই খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত করা সম্ভব হল।

পুলিশ সূত্রে খবর, রবিবার কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ মানিকতলা থানা এলাকায় তল্লাশি চালায়।তল্লাশি চালিয়ে ৫২ কেজি ওজনের ১৩টি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১৫ কেজি ওজনের দুটি অক্সিজেন সিলিন্ডার বাজেয়াপ্ত করা হয়। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, বেআইনিভাবে খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার মজুত করা হচ্ছিল কালোবাজারি করার জন্য। জানা গিয়েছে, বিধান সরণি এলাকায় ওই সংস্থার মালিক বিপুল টাকায় বিক্রি করতেন অক্সিজেন সিলিন্ডার। এক-একটি ছোট সিলিন্ডারের দাম নেওয়া হত ১৮,০০০-২০,০০০ টাকা। বড় সিলিন্ডারের দাম নেওয়া হত ৩০,০০০-৩৫,০০০ টাকা। যারা ওই সব সিলিন্ডার কিনত, তাদের সন্ধান করছে পুলিশ। সিলিন্ডার বিক্রির কিছু বিলও পুলিশের হাতে এসেছে।জানা যাচ্ছে, ওই সিলিন্ডার বিক্রির সঙ্গে একটি চক্র কাজ করছে। পুলিশ সেই চক্রেরই খোঁজ করছে।পাশাপাশি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার এভাবে বিক্রি করা যায় কিনা, তা নিয়ে ড্রাগ কন্ট্রোলারের কাছে জানতে চেয়েছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, দেশ জুড়ে অক্সিজেনের সংকট বাড়তে থাকায় এই রাজ্যে অক্সিজেন সিলিন্ডারের উপর কালোবাজারি রুথতে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন। কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের তরফেও কালোবাজারি রুখতে আট সদস্যের বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করা হয়েছে।

বন্ধ করুন