গত কয়েক বছরে লাফিয়ে বেড়েছে কলকাতার বায়ুদূষণের মাত্রা।
গত কয়েক বছরে লাফিয়ে বেড়েছে কলকাতার বায়ুদূষণের মাত্রা।

পিছিয়ে নেই কলকাতা, দূষণ তালিকায় ২৮তম স্থানে তিলোত্তমা

লাগামছাড়া নির্মাণ, অকাতরে গাছ কাটা এবং রাস্তায় হু হু করে গাড়ির সংখ্যাবৃ্ঋির জেরে গত কয়েক বছরে লাফিয়ে বেড়েছে কলকাতার বায়ুদূষণের মাত্রা।

বায়ুদূষণের মাত্রার পরিমাপে সারা বিশ্বে বিশেষ পিছিয়ে নেই কলকাতা। মঙ্গলবার প্রকাশিত আইকিউএয়ার এয়ার ভিস্যুয়াল সংস্থা প্রকাশিত বিশ্বের বায়ুমান রিপোর্টে জানা গিআন্তর্জাতিক দূষণ তালিকার ২৮ নম্বরে স্থান পেয়েছে ‘আনন্দনগরী’।

লাগামছাড়া নির্মাণ, অকাতরে গাছ কাটা এবং রাস্তায় হু হু করে গাড়ির সংখ্যাবৃ্ঋির জেরে গত কয়েক বছরে লাফিয়ে বেড়েছে কলকাতার বায়ুদূষণের মাত্রা। ২০০৯ সালে বিজ্ঞান ও পরিবেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রকাশিত রিপোর্টে দেখা যায়, শহরের বায়ুতে ভাসমান পদার্থের (SPM) মাত্রা ছিল ৫১১। এই কারণে মুম্বই, দিল্লি ও চেন্নাইকে পিছনে ফেলে দূষণ তালিকার শীর্ষে উঠেছিল তিলোত্তমার নাম।

২০১০ সালে কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্যদের সংগৃহীত তথ্য অনুযায়ী, বায়ুদূষণের নিরিখে দিল্লির সঙ্গে একাসনে বসানো হয় কলকাতাকে।

চিত্তরঞ্জন জাতীয় ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের দাবি, শহরের ৭০% বাসিন্দা শ্বাসকষ্টজনিত উপসর্গে আক্রান্ত হয়েছেন। ওই রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রতি ১ লাখ শহরবাসীর মধ্যে গড়ে ১৮.৪ জন ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’ বায়ুদূষণ আক্রান্ত শহরের যে আন্তর্জাতিক তালিকা তৈরি করেছে, সেখানেও ২৫ তম স্থানে রয়েছে বাংলার রাজধানীর নাম।

বন্ধ করুন