বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় প্রথম মৃত্যু, প্রাণ হারালেন মহিলা
ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় মৃত্যু মহিলার। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় মৃত্যু মহিলার। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় প্রথম মৃত্যু, প্রাণ হারালেন মহিলা

  • করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর ধরা পড়েছিল ব্ল্যাক ফাংগাসও।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর ধরা পড়েছিল ব্ল্যাক ফাংগাসও এক মহিলার। শুক্রবার ভোরে কলকাতার শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসপাতালে মৃত্যু হল তাঁর। সূত্রের খবর, মহিলার ডেথ সার্টিফিকেটে করোনাভাইরাস এবং ব্ল্যাক ফাংগাস - দুটি বিষয়ের উল্লেখ আছে। তার ফলে করোনাভাইরাস এবং ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে এই প্রথম মৃত্যু হল কলকাতায়।

সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হয়ে শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসপাতালে ভরতি হয়েছিলেন হরিদেবপুরের বাসিন্দা শম্পা চক্রবর্তী (৩২)। পরে তাঁর শরীরে থাবা বসায় ব্ল্যাক ফাংগাসও। এবার রাজ্যে প্রথম তিনিই মিউকোরমাইকোসিসে (চিকিৎসা পরিভাষায় নাম) আক্রান্ত হন। মিউকোরমাইকোসিসে আক্রান্ত বিষয়টি ধরা পড়ার পরই মহিলাকে অ্যাম্ফোটিরিসিন-বি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ব্ল্যাক ফাংগাসের জেরে তাঁর মস্তিষ্ক, চোখ, চোয়াল ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফুসফুসেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। শেষপর্যন্ত শুক্রবার ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়। 

‘ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ বা মিউকোরমাইকোসিস কী?

অত্যন্ত গুরুতর এবং বিরল ছত্রাক সংক্রমণ। যা করোনাভাইরাসের কারণে আরও মারাত্মক হয়েছে। সেই সংক্রমণের ফলে একাধিক সমস্যা তৈরি হচ্ছে। মৃত্যু পর্যন্ত হয়। গত বছর যে অ্যাডভাইজারি জারি করা হয়েছিল, সেই অনুযায়ী সার্বিকভাবে মিউকোরমাইকোসিসের ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশের মতো।

সেই সংক্রমণের ফলে সাইনাস বা ফুসফুসে বেশি প্রভাব পড়ে (শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে শরীর প্রবেশ করলে)। আবার শরীরের কোনও কাটা, পুড়ে যাওয়া জায়গা বা ত্বকে অন্যান্য কোনও আঘাত দিয়ে ছত্রাক প্রবেশ করলে ত্বকে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে। অ্যাডভাইজারি অনুযায়ী, শরীরের যে কোনও জায়গায় সেই সংক্রমণ হতে হবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাভাইরাস আক্রান্তদের এমনিতেই শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে। তার ফলে ছত্রাক সংক্রমণে শিকার হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। তবে স্বস্তির বিষয় যে মানুষ থেকে মানুষের দেহে সেই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে না। একইসঙ্গে মানুষ এবং প্রাণীর মধ্যে ‘ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ ছড়ায় না বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

উপসর্গ

অসাড় মুখ, নাকের একদিক বন্ধ, চোখে ফোলা বা ব্যথা। কাশি, জ্বর, মাথা যন্ত্রণার মতো উপসর্গও দেখা দিতে হবে। প্রাথমিকভাবে ত্বকের যেখানে আঘাত আছে, সেখানে সংক্রমণ হতে পারে। তারপর তা দ্রুত শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে যেতে পারে। গায়ে ফোসকা, ত্বকে লালভাব-ফোলাভাবের মতো উপসর্গ নিয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রতিরোধের উপায়

বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, অসাড় মুখ, নাকের একদিক বন্ধ, চোখে ফোলা বা ব্যথার মতো উপসর্গগুলি দেখা দিলেই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ নিন। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো যত দ্রুত সম্ভব অ্যান্টি-ফাঙ্গাস থেরাপি শুরু করে ফেলতে হবে। এড়িয়ে যেতে হবে ধুলোর সঙ্গে সরাসরি সংস্পর্শ। মাটি বা শ্যাওলা নিযে ঘাঁটাঘাটির সময় জুতো, লম্বা প্যান্ট পরতে হবে। সাবান এবং জল দিয়ে ত্বকের আঘাত পরিষ্কার করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বন্ধ করুন