বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > নেশাগ্রস্ত সাইকেল আরোহীদের জন্য পদক্ষেপ লালবাজারের, বাড়ছে ব্রেথ অ্যানালাইজার
কোনও সাইকেল আরোহী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাইকেল চালালে তাকে পাকড়াও করা হবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
কোনও সাইকেল আরোহী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাইকেল চালালে তাকে পাকড়াও করা হবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

নেশাগ্রস্ত সাইকেল আরোহীদের জন্য পদক্ষেপ লালবাজারের, বাড়ছে ব্রেথ অ্যানালাইজার

  • কোনও সাইকেল আরোহী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাইকেল চালালে তাকে পাকড়াও করা হবে।

বড় পদক্ষেপ করতে চলেছে কলকাতা পুলিশ। করোনাভাইরাসের জেরে শহরে এখন সাইকেল চলছে। কিন্তু মদ্যপ অবস্থায় সাইকেল চালানো যাবে না। আগে এই তালিকায় গাড়ি ও মোটরবাইক রাখা হয়েছিল। সেখানে এবার যোগ হল সাইকেলও! কোনও সাইকেল আরোহী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাইকেল চালালে তাকে পাকড়াও করা হবে। আর ওই ব্যক্তি নেশাগ্রস্ত হয়ে আছেন কিনা তা পরীক্ষা করতে রাস্তার মোড়ে ব্রেথ অ্যানালাইজার নিয়ে থাকবেন পুলিশকর্মীরা।

সাইকেলকে কেন যুক্ত করা হল? কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, ইদানিং শহরের রাস্তায় একাধিক সাইকেল দুর্ঘটনা দেখা গিয়েছে। চিৎপুর এবং ঠাকুরপুকুরে দু’টি দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে দুই সাইকেল আরোহীর। তারপরেই নড়েচড়ে বসেছে পুলিশ। তদন্তে নেমে দেখা গিয়েছে বহু সাইকেল আরোহী মদ্যপ অবস্থায় যাতায়াত করছেন। ফলে শহরে ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা। তাই রাতের শহরে ব্রেথ অ্যানালাইজার দিয়ে সাইকেল আরোহীদের পরীক্ষা করার নির্দেশ দেয় লালবাজার। কোনও সাইকেল আরোহী নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ধরা পড়লে থানার হাতে তুলে দিতে বলা হয়েছে।

লকডাউনের পর থেকে শহরের রাস্তায় সাইকেল চালাতে বাধা দেওয়া হচ্ছে না। মানবিক কারণে সাইকেল চালাতে দেওয়া হচ্ছে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অনেকেই নেশা করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ফলে পথ দুর্ঘটনার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। তাই সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে ব্রেথ অ্যানালাইজার দিয়ে পরীক্ষার ব্যবস্থা করেছে কলকাতা পুলিশ।

লালবাজার সূত্রে খবর, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাইকেল চালানোর প্রবণতা বেড়েছে। এমনকী বহু সাইকেল আরোহীকে ধরাও হয়েছে। যাদের পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে তারা নেশাগ্রস্ত। ব্রেথ অ্যানালাইজার যন্ত্রটি প্রতি বার ব্যবহারের পরে পাইপটি পাল্টানোর পাশাপাশি যন্ত্রটিও জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে। এই প্রবণতা বাড়তে থাকায় এই পদক্ষেপ করা হয়েছে।

বন্ধ করুন