মেয়রের ঘরে তৃণমূলের দলবদল।
মেয়রের ঘরে তৃণমূলের দলবদল।

মেয়রের ঘরই যেন তৃণমূলের পার্টি অফিস, দলবদল করলেন বাম কাউন্সিলর

  • ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বামেরা। বিধানসভায় বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘রাজ্যে আইন শৃঙ্খলা বলে কিছু নেই।

কলকাতা পুরসভার মেয়রের ঘরই যেন তৃণমূলের পার্টি অফিস। শনিবার দুপুরে কেউ সেখানে পৌঁছে গেলে কিছুক্ষণের জন্য তেমনটা মনে হতেই পারত। ওই ঘরেই হাতে ঘাসফুল আঁকা পতাকা তুলে নিয়ে দলবদল করছেন বাম কাউন্সিলর রীতা চৌধুরী। ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছে বিরোধীরা। তবে এবারই প্রথম নয়, ২০১১-র পালাবদলের পর নবান্নে দলবদল দেখেছিলের রাজ্যবাসী। নবান্নেই কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন মলদার কংগ্রেস নেত্রী শেহেনাজ কাদরি।

কলকাতা পুরসভার ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের বাম কাউন্সিলর রীতা চৌধুরী শনিবার তৃণমূলে যোগ দেন। দীর্ঘ চার বারের কাউন্সিলর তিনি। তাঁর হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন ময়র ফিরহাদ হাকিম। সেই সময় মেয়রের ঘরে হাজির ছিলেন উত্তর কলকাতার সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরসভার চেয়ারপার্সন মালা রায় প্রমুখ। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, মেয়রের ঘরে তৃণমূলের পতাকা এল কী করে।

ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বামেরা। বিধানসভায় বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘রাজ্যে আইন শৃঙ্খলা বলে কিছু নেই। মেয়র তাঁর ঘরে তৃণমূলের পতাকা জোগাড় করে রেখেছেন। সেখানেই রাজনৈতিক কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। এর থেকে লজ্জার আর কিছু নেই।’

তৃণমূলের যদিও সাফাই, দলবদল মেয়রের টেবিলে হয়নি। ঘরের এক কোণে হয়েছে। তাতে মেয়র পদের গরিমা ক্ষুণ্ণ হয় না।


বন্ধ করুন