বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মানুষকে BJP-র অফিস দেখতে না দেওয়ার জন্য আলো নেভানো হয়, দাবি গেরুয়া শিবিরের
বিজেপির অফিসের সামনে নিভল আলো। (ছবি সৌজন্য, ভিডিয়ো টুইটার @IamRiteshTiwari)
বিজেপির অফিসের সামনে নিভল আলো। (ছবি সৌজন্য, ভিডিয়ো টুইটার @IamRiteshTiwari)

মানুষকে BJP-র অফিস দেখতে না দেওয়ার জন্য আলো নেভানো হয়, দাবি গেরুয়া শিবিরের

বিজেপির তরফে দাবি করা হয়েছে, বিজেপির পার্টি অফিস যাতে দর্শনার্থীরা দেখতে না পান, সেই কৌশল আঁটতেই এই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

পুজোর সময়ে খোদ কলকাতার বুকে নিভল রাস্তার আলো। তাও আবার কোথায়। মহম্মদ আলি পার্ক, কলেজ স্কোয়ারের মতো পুজো যেখানে হচ্ছে, সেই চত্বরে। মুরলীধর সেন স্ট্রিট, বিজেপির পার্টি অফিসের ঠিক সামনের রাস্তায়। পুলিশের বক্তব্য, বেসামাল ভিড় সামাল দিতেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে প্রশাসনের এই পদক্ষেপে রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছে বিজেপি।

নবমীর রাতে ঠাকুর দেখতে প্রচুর মানুষের ঢল নামে চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউ ও কলেজ স্ট্রিট এলাকায়। যেহেতু নবমীর রাতে শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের ‘‌বুর্জ খলিফা’‌ প্রদর্শন বন্ধ হয়ে যায়, তাই প্রচুর মানুষ উত্তর ও মধ্য কলকাতায় ভিড় জমান। তবে আচমকাই মহম্মদ আলি পার্ক ও কলেজ স্ট্রিটের সংযোগকারী রাস্তা মুরলীধর সেন স্ট্রিটে আলো নেভা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এই রাস্তাতেই বিজেপির রাজ্য সদর দফতর। ওই রাস্তায় হঠাৎই তিনটি আলো নিভিয়ে দেওয়া হয়। মহম্মদ আলি পার্কের ঠাকুর দেখে প্রচুর মানুষকে ওই পথেই কলেজ স্কোয়ারের ঠাকুর দেখতে যেতে হয়। হঠাৎ রাস্তার আলো নিভে যাওয়ায় অনেককেই অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয়েছে। তবে রাস্তার আলো নেভা থাকলেও মানুষের ওই পথে যাতায়াত রোখা যায়নি।

যদিও কলকাতা পুরনিগমের ওই আলো নিভে যাওয়ার পিছনে রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছে বিজেপি। বিজেপির তরফে দাবি করা হয়েছে, বিজেপির পার্টি অফিস যাতে দর্শনার্থীরা দেখতে না পান, সেই কৌশলের জন্যই এই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আলো নেভানোর ভিডিও আপলোড করে টুইটে প্রতিবাদ জানান বিজেপি নেতা রীতেশ তিওয়ারি। টুইটারে তিনি লেখেন, ‘‌তৃণমূলের দাদাগিরির এটা স্পষ্ট উদাহারণ।’‌ তবে প্রশাসনের তরফে অবশ্য বিজেপির বক্তব্যকে নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, মহম্মদ আলি পার্ক, কলেজ স্কোয়ারে যেভাবে মানুষ সন্ধ্যা থেকে আসছিলেন, সেই ভিড় নিয়ন্ত্রণের জনই আলো নেভাতে হয়েছে।

বন্ধ করুন