বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > রেকর্ড মদ বিক্রিতে ফুলে ফেঁপে উঠেছে কোষাগার, গত ১৮ মাসে রাজ্যের আয় ২৩,০০০ কোটি
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য বিপিন কুমার/হিন্দুস্তান টাইমস
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য বিপিন কুমার/হিন্দুস্তান টাইমস

রেকর্ড মদ বিক্রিতে ফুলে ফেঁপে উঠেছে কোষাগার, গত ১৮ মাসে রাজ্যের আয় ২৩,০০০ কোটি

  • ২০১৭-১৮ এবং ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরে মদ বিক্রির পরিমাণকে অনেকটাই পিছনে ফেলেছে গত দেড় বছরের মদ বিক্রি।

করোনাকালে মদ বিক্রি বেড়েছে রাজ্যে। শুধু বেড়েছে বললে অবশ্য ভুল হবে, বরং বলা ভালো, এই সময়কালে মদ বিক্রির রেকর্ড ভেঙেছে রাজ্যে। করোনাকালে যখন দেশের বিভিন্ন ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে পড়েছে করোনার ‘শনির নজর’, সেখানে মদ বিক্রির ব্যবসার উপর দেখা দিয়েছে করোনার ‘আশীর্বাদ’। এর জেরে গত দেড় বছরে মদ বিক্রির পরিমাণ ভেঙেছে পুরোনো সব রেকর্ড।

এদিকে রাজ্যে মদ বিক্রির এই নয়া রেকর্ডের ফলে লাভবান হয়েছে রাজ্য সরকারও। ২০১৭-১৮ এবং ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরে মদ বিক্রির পরিমাণকে অনেকটাই পিছনে ফেলেছে গত দেড় বছরের মদ বিক্রি। ২০২০-র জুন মাস থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত মদ বিক্রির থেকে রাজ্যের আয় হয়েছে ২৩ হাজার কোটি টাকা। জানা গিয়েছে, দেশি মদ বিক্রি করেই রাজ্য আবগারি দপ্তর সবথেকে বেশি আয় করেছে।

জানা গিয়েছে, রাজ্যে এই গত দেড় মাসে যত মদ বিক্রি করা হয়েছে, তার মধ্যে থেকে ৩৫ শতাংশই দেশি মদ। দেশি মদের পর সবথেকে বেশি বিক্রি হয়েছে বিয়ার। উল্লেখ্য, গত দেড় বছরে অনেকটা সময়ই করোনার জেরে লকডাউন জারি ছিল। বন্ধ ছিল মদের দোকান। তা সত্ত্বেও উত্সবের মরশুমে মদ বিক্রি করে সেই লোকশান পুষিয়ে গিয়েছে। ২০২০ ও ২০২১ সালের দুর্গাপুজো এবং সাম্প্রতিক বড়দিন এবং ইংরেজি নববর্ষের সময় রেকর্জ পরিমাণ মদ বিক্রি হয়েছে। তবে সার্বিক ভাবে বিদেশি মদের বিক্রি কিছুটা কমেছে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্যে সব সবথেকে বেশি মদ বিক্রি হয়েছে রাজ্যে।

বন্ধ করুন