বিলাসবহুল অডি গাড়িতে লাগানো কনস্যুলেট বা দূতাবাসের নম্বর প্লেট। কিন্তু গাড়িতে থাকা যুবকদের আচরণ ও নথি দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। তদন্তে জানা যায়, তাঁরা পার্টি করে ফিরছিলেন। তারপর তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে গাড়িটি।

এক পুলিশ কর্তা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতে রাসেল স্ট্রিটে নাকা চেকিং করছিল পুলিশ। মধ্যরাত গড়িয়ে সাড়ে ১২টা থেকে একটা নাগাদ ওই গাড়িটি আসে। প্রাথমিকভাবে তাঁরা দাবি করেন, গাড়িটি দূতাবাসের। পরে তদন্তে জানা যায়, একটা সময় দক্ষিণ কোরিয়ার দূতাবাসে গাড়িটি ভাড়া খাটত। ২০১৯ সালে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল। তারপরও প্লেট খোলা হয়নি। অবৈধভাবেই সেই প্লেট ব্যবহার করা হচ্ছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলকাতা পুলিশের এক কর্তা জানিয়েছেন, তিনজন মত্ত অবস্থায় ছিল। তাঁরা দূতাবাসের গাড়ির নম্বর প্লেট ও জাল নথি ব্যবহার করছিলেন। একইসঙ্গে লকডাউনের বিধি উপেক্ষা করায় তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের নাম - বন্ধন আগরওয়াল (২৭), বরুণ হাডা (৩৩) ও মনোজ আগরওয়াল (৩৩)। তাঁরা প্রত্যেকেই ব্যবসায়ী। বরুণ রাসেল স্ট্রিট থেকে মেরেকেটে দু'কিলোমিটার দূরে থাকেন। মনোজ এবং গাড়ির মালিক বন্ধনের বাড়ি রডন স্ট্রিটে।

এছাড়াও গাড়িতে থাকা দুই মহিলার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা হচ্ছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। ধৃতদের ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হলে ৪ মে পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন