সোমবার গোধূলিতে ধর্মতলায় পুলিশের মাইকিং (REUTERS)
সোমবার গোধূলিতে ধর্মতলায় পুলিশের মাইকিং (REUTERS)

লকডাউন শুরু হতেই শুনশান কলকাতার রাজপথের দখল নিল পুলিশ

  • ধর্মতলা চত্বরে বাইরে থেকে বাসে করে আসা কিছু মানুষের ভিড় রয়েছে। বাস, ট্রাম, ট্রেন, ট্যাক্সি সব বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাড়ি ফিরতে পারছেন না তারা।

করোনাভাইরাস রুখতে একজোট হয়ে লকডাউনে নামলেন কলকাতা-সহ পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত পুর এলাকার বাসিন্দারা। সোমবার বিকেল ৫টা থেকে রাজ্য সরকারের নির্দেশে শুরু হয়েছে লকডাউন। তার মধ্যেই কলকাতা-সহ গোটা রাজ্যের পুর এলাকার বাসিন্দারা নিজেদের গৃহবন্দি করেছেন। কিছু মানুষ, জরুরি প্রয়োজনে রাস্তায় থেকে গিয়েছিলেন। তাদের বাড়ি ফেরানোর চেষ্টা করছে পুলিশ।

সোমবার বেলা ৩টে থেকেই কলকাতার রাস্তায় কমতে শুরু করে ভিড়। বিকেল ৫টার মধ্যে প্রায় শুনশান হয়ে যায় পথঘাট। তবে ধর্মতলা চত্বরে বাইরে থেকে বাসে করে আসা কিছু মানুষের ভিড় রয়েছে। বাস, ট্রাম, ট্রেন, ট্যাক্সি সব বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাড়ি ফিরতে পারছেন না তারা।

লকডাউন শুরু হতেই কলকাতায় পথে নেমেছে পুলিশ। বিভিন্ন জায়গায় জটলা করার চেষ্টা করলে তাদের সরিয়ে দিচ্ছেন পুলিশকর্মীরা। প্রশাসনের তরফে বাড়ি থেকে না বেরোতে কড়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

সরকারি নির্দেশ অনুসারে শুক্রবার রাত ১২টা পর্যন্ত চলবে লকডাউন। তার পর তার মেয়াদ বৃদ্ধির ব্যাপারে ভাববে রাজ্য সরকার। লকডাউন চলাকালীন অকারণে বাড়ি থেকে বেরোলে গ্রেফতার করতে পারে পুলিশ। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় ৬ মাসের জেল বা ১,০০০ টাকা জরিমানা বা দুই-ই একসঙ্গে হতে পারে।



বন্ধ করুন