বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Torture on dog: চেনে বেঁধে কুকুরকে পাত্র-কাঠ দিয়ে মার, ভিডিয়ো ছড়াতেই পাকড়াও করল কলকাতা পুলিশ

Torture on dog: চেনে বেঁধে কুকুরকে পাত্র-কাঠ দিয়ে মার, ভিডিয়ো ছড়াতেই পাকড়াও করল কলকাতা পুলিশ

কুকুরকে মারধরের ভিডিয়ো এবং ধৃত ব্যক্তি। (ছবি সৌজন্যে, ভাইরাল ভিডিয়ো এবং ফেসবুক Kolkata Police)

Torture on dog: কলকাতা পুলিশের তরফে বলা হয়েছে, ‘চেনে বাঁধা একটি কুকুরকে নির্মম শারীরিক নির্যাতন করছেন এক ব্যক্তি। প্রথমে প্লাস্টিকের একটি পাত্র দিয়ে অনবরত আঘাত করে চলেছেন সারমেয়টিকে। পাত্রটি একসময় ভেঙে যায়।’

চেন দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছিল কুকুরকে। সেভাবেই পাত্র ও কাঠ দিয়ে কুকুরকে মারছে এক ব্যক্তি। সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ভিডিয়ো ভাইরাল হওয়ার পরই অভিযুক্ত প্রৌঢ়কে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশ। তারপরেই পুলিশের প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা।

শুক্রবার কলকাতা পুলিশের তরফে ফেসবুক পোস্টে বলা হয়েছে, ‘ভাইরাল হয়ে যাওয়া ভিডিয়োটা আপনাদের অনেকেই হয়তো দেখেছেন গতকাল (বৃহস্পতিবার)। চেনে বাঁধা একটি কুকুরকে নির্মম শারীরিক নির্যাতন করছে এক ব্যক্তি। প্রথমে প্লাস্টিকের একটি পাত্র দিয়ে অনবরত আঘাত করে চলেছে সারমেয়টিকে। পাত্রটি একসময় ভেঙে যায়। তাতে ক্ষান্ত হয়নি ওই ব্যক্তি। লম্বা একটি কাঠের খণ্ড নিয়ে ফের শুরু হয় প্রহার।’

আরও পড়ুন: Stray dogs: পথ কুকুরকে রোজ খেতে দেন? বড় নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

ওই পোস্টে আরও বলা হয়েছে, ‘ভিডিয়োটি ভাইরাল হওয়ার পর উপচে পড়ে আমাদের ইনবক্স, ক্ষোভ উগরে দেন ক্ষুব্ধ নেট নাগরিকরা। একটি এনজিওয়ের তরফে লিখিত অভিযোগপত্র পাঠানো হয় আমাদের কাছে। যার ভিত্তিতে আমহার্স্ট স্ট্রিট থানায় নির্দিষ্ট মামলা রুজু হয় পশু নির্যাতন বিরোধী আইনে। অভিযুক্ত অনিল প্রসাদ (৫০) গ্রেফতার হয়েছে গতরাতেই তার ঘোষ লেনের বাড়ি থেকে।’

পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, আপাতত ওই কুকুরটিকে উদ্ধার করে পশুপ্রেমী সংগঠনের আশ্রয়ে রাখা হয়েছে। কলকাতা পুলিশের ফেসবুক পোস্টে বলা হয়েছে, ‘অভিযুক্ত বর্তমানে আমাদের হেফাজতে। মামলার তদন্তভার ন্যস্ত হয়েছে আমহার্স্ট স্ট্রিট থানার সার্জেন্ট (ইনভেস্টিগেশন ক্যাডার) অর্ঘ্য সাহার উপর। দ্রুত তদন্ত শেষ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উদ্ধার হওয়া কুকুরটি বর্তমানে এনজিওয়ের নিরাপদ আশ্রয়ে আছে।’

আরও পড়ুন: ১১ প্রজাতির বিদেশি কুকুর নিষিদ্ধ হল ওই শহরে, সারমেয় পুষলে মোটা টাকার লাইসেন্স

সেই পোস্টে কলকাতা পুলিশের প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা। তেমনই এক নেটিজেন বলেছেন, ‘অনেক ধন্যবাদ। কিন্তু ওনার শাস্তিটা যেন হয় সেটা দেখার অপেক্ষায় রইলাম।’ একইসুরে অপর একজন বলেন, ‘অনেক ধন্যবাদ আপনাদের!! কাল রাতে আমার ঘুম উড়ে গিয়েছিল ওটা দেখে।’ অপর একজন বলেন, ‘প্রথমে অবলা প্রাণীদের উপর অত্যাচারের ঘটনা জানতে পেরে উপযুক্ত ব্যবস্থা ও অপরাধীকে গ্রেফতার করার জন্য কলকাতা পুলিশকে অসংখ্য ধন্যবাদ। কলকাতা পুলিশের কাছে অনুরোধ।’

বন্ধ করুন