বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > বাইপাস–কাণ্ডে নতুন মোড়, যুবক–যুবতী পূর্বপরিচিত, ৪ মাস হাঁটতে পারবেন না নীলাঞ্জনা
নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়। ছবি : ফেসবুক
নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়। ছবি : ফেসবুক

বাইপাস–কাণ্ডে নতুন মোড়, যুবক–যুবতী পূর্বপরিচিত, ৪ মাস হাঁটতে পারবেন না নীলাঞ্জনা

  • অভিযুক্ত যুবককে এখনও ধরতে পারেনি পুলিশ।
  • গাড়িটি উদ্ধার করেছেন তদন্তকারী আধিকারিকরা।
  • সোমবার নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়ের পায়ে অস্ত্রোপচার করা হয়।
  • অভিযুক্ত যুবকের নাম অভিষেক পান্ডে, অমিতাভ বসু নয়।

ইএম বাইপাসে চলন্ত গাড়িতে যুবতীর শ্লীলতাহানি এবং তাঁকে বাঁচাতে যাওয়া আর এক মহিলাকে জখম করার ঘটনায় অভিযুক্ত যুবককে এখনও ধরতে পারেনি পুলিশ। যদিও শনিবার রাতে ঘটে যাওয়া ওই ঘটনায় একাধিক নতুন মোড় পাওয়া গিয়েছে সোমবার। তদন্ত করে পুলিশ জানতে পেরেছে, অভিযুক্ত যুবক ও নিগৃহীত যুবতী বেশ কয়েক বছর ধরেই পরিচিত।

যে গাড়িতে যুবতীর শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ সোমবার সেটি উদ্ধার করেছেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। একইসঙ্গে পুলিশ জানতে পেরেছে, অভিযুক্ত যুবকের নাম অভিষেক পান্ডে। কিন্তু ওই যুবতী পুলিশকে তার নাম বলেছিলেন অমিতাভ বসু। একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছিলেন, কয়েকদিন আগেই ওই যুবকের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব হয়। কিন্তু তদন্তে জানা গিয়েছে, তাঁরা একে অপরকে ৫ বছর ধরে চেনেন এবং এরই মধ্যে তাঁদের বিয়ে হওয়ারও কথা ছিল।

ওই যুবকের মা পুলিশকে জানিয়েছেন, তাঁর ছেলে এবং ওই যুবতী ৫ বছর ধরে পরিচিত এবং এই বছরের শেষেই তাঁদের বিয়ে হওয়ার কথা। প্রত্যেকদিন তাঁরা ওই গাড়ি করেই অফিস থেকে বাড়ি ফিরতেন। কিন্তু ওই যুবতী পুলিশকে জানায়, বন্ধুত্ব হওয়ার পর এই প্রথম ওই গাড়িতে করে ঘুরতে বেড় হন তাঁরা।

এদিকে, ওই যুবতীকে বাঁচাতে গিয়ে নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়ের পায়ের ওপর দিয়ে অভিযুক্তের গাড়ির চাকা চলে যায়। এতে তাঁর পায়ের একটি হাড়ও ভেঙেছে। সোমবার নীলাঞ্জনার পায়ে অস্ত্রোপচার করা হয়। এদিন তাঁর স্বামী দীপ শতপথি বলছিলেন, ‘‌ওই যুবতী এবং অভিযুক্তের মধ্যে কী সম্পর্ক রয়েছে আমাদের জানা নেই। ওই মেয়েটির আর্তনাদ শোনার পর একজন নাগরিকের যা দায়িত্ব আমি আর আমার স্ত্রী তা–ই পালন করেছি। চিকিৎসক জানিয়েছেন, নীলাঞ্জনার একাধিক হাড় ভেঙেছে এবং তার জেরে ও ৩ থেকে ৪ মাস হাঁটতে পারবে না।’‌

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে স্বামী দীপ শতপথির সঙ্গে ইএম বাইপাস ধরে গাড়িতে বাড়ি ফেরার সময় অন্য এক চলন্ত গাড়ি থেকে ওই যুবতীর আর্তনাদ শুনতে পান নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়। তাঁরা গাড়ি থামিয়ে পেছনে থাকা গাড়িটির পথ আটকান। দীপ জানান, ‘‌এর পর সঙ্গে সঙ্গে গাড়ি থেকে নেমে আমার স্ত্রী পেছনের হন্ডা সিটি গাড়িটির দিকে যান। সেই সময় চলন্ত গাড়ি থেকে ওই যুবতীকে ছুড়ে ফেলা হয়। এর পরই আমার স্ত্রীকে ধাক্কা মারে গাড়িটি। গাড়ির চাকা তাঁর পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়।’‌ ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে ওই যুবতীকে উদ্ধার করে এবং নীলাঞ্জনাদেবীকে হাসপাতালে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করে। যদিও এখনও অভিযুক্তর সন্ধান পায়নি পুলিশ।

বন্ধ করুন