বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বাজারে কিছুটা বাড়ল ইলিশের জোগান, কিন্তু দামের ঠেলায় মিলল না তৃপ্তি
বাজারে কিছুটা বাড়ল ইলিশের জোগান, কিন্তু দামের ঠেলায় মিলল না তৃপ্তি। (ছবিটি প্রতীকী)
বাজারে কিছুটা বাড়ল ইলিশের জোগান, কিন্তু দামের ঠেলায় মিলল না তৃপ্তি। (ছবিটি প্রতীকী)

বাজারে কিছুটা বাড়ল ইলিশের জোগান, কিন্তু দামের ঠেলায় মিলল না তৃপ্তি

  • পর্যাপ্ত পরিমাণে আসেনি। তাও রবিবার বাঙালির কিছুটা আশ পূরণ করল ইলিশ মাছ।

পর্যাপ্ত পরিমাণে আসেনি। তাও রবিবার বাঙালির কিছুটা আশ মিটিয়ে দিল ইলিশ মাছ। ব্রাজিল-আর্জেন্তিনা ম্যাচের আবেগ সামলে মানিকতলা বাজারে দেখা পেলেন রুপোলি শস্যের। তবে কেজিতে দাম উঠল ১,৭০০ টাকার মতো। 

রবিবার মানিকতলা বাজারের বিক্রেতারা জানান, আগের থেকে বাজারে ইলিশ মাছের জোগান বেড়েছে। কিন্তু অন্যবার যতটা থাকে, তার থেকে অনেকটাই কম আছে। দাম অবশ্য অনেকটা বেশি পড়ছে। মোটামুটি এক কেজি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১,৭০০-১,৮০০ টাকায়। বিভিন্ন আকারের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। সেই ইলিশ প্রাপ্তিতে কিছুটা হাসি ফুটেছে ক্রেতাদের মুখে। বাজারের ব্যাগে করে কিছুটা হলে ইলিশ নিয়েও ফিরেছেন। কিন্তু সকলের একটাই আক্ষেপ, দামটা বড্ড বেশি। নাহলে আরও একটু নেওয়া যেত।

এমনিতে এবার ইলশেগুঁড়ি বৃষ্টিতে ভরা আষাঢ়েও পদ্মায় দেখা মিলছে না ইলিশের। যদিও বর্ষা আগেভাগে আসায় মৎস্যজীবীদের আশা ছিল, অন্যবারের থেকে এবার বেশি ইলিশ মিলবে। কিন্তু দেখা নেই ইলিশের। মাঝেমধ্যে কিছু ইলিশের দেখা মিলছে।শুধু পদ্মা নয়, বঙ্গোপসাগরেও একইভাবে ইলিশের আকাল দেখা দিয়েছে। জালে কার্যত ধরা পড়ছে না ইলিশ। অভিজ্ঞ মৎস্যজীবীদের দাবি, সাধারণত এই ধরনের ঘটনা দেখা যায় না। এবারে যেন সমুদ্রে ইলিশের আকাল লেগে গিয়েছে। কম চেষ্টা করেননি মৎস্যজীবীরা। কিন্তু কিছুতেই কিছু হচ্ছে না। তবে এবার আবহাওয়া অনুকূল হলেও পূবালি হাওয়ার দেখা নেই। জলের স্রোতও বাংলাদেশের দিকে বইছে। সম্ভবত সে কারণেই ইলিশের দেখা মিলছে না বলে ধারণা মৎস্যজীবীদের। তারইমধ্যে সরকারের বিধিনিষেধ সত্ত্বেও খোকা ইলিশ ধরার অভিযোগ উঠেছে। সবমিলিয়ে খুচরো বাজারে সেভাবে দেখা নেই ইলিশের।

বন্ধ করুন