বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > দলত্যাগ মামলায় মুকুলের মানসিক স্থিতিকেই হাতিয়ার করলেন ‘বিজেপি বিধায়কের’ আইনজীবী
মুকুল রায় । ফাইল ছবি। (PTI)
মুকুল রায় । ফাইল ছবি। (PTI)

দলত্যাগ মামলায় মুকুলের মানসিক স্থিতিকেই হাতিয়ার করলেন ‘বিজেপি বিধায়কের’ আইনজীবী

  • শুধু তাই নয় এ প্রসঙ্গে মুকুল রায়ের মানসিক অবস্থাকেই হাতিয়ার করেছেন তাঁর আইনজীবী। তাঁর বক্তব্য, 'এটি যে সময়কার ছবি সেই সময় মুকুল রায়ের স্ত্রী অসুস্থ ছিলেন ফলে তাঁর মানসিক অবস্থা ঠিক ছিল না।'

মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ আদৌও কি বৈধ? তা নিয়ে এখন শুনানি চলছে বিধানসভায়। সপ্তাহখানেক আগেই মুকুল রায়ের বিধায়ক পদের বৈধতা মামলায় তাঁর আইনজীবী দাবি করেছিলেন তিনি দলবদল করেননি। তারপরেই শুভেন্দুর আইনজীবী পাল্টা দাবি করেছিলেন, মুকুল রায়ের দলবদল করার ফুটেজ তাদের কাছে রয়েছে। সোমবার বিধানসভার অধ্যক্ষের কক্ষে সেই ফুটেজকে 'সঠিক নয়' বলেই দাবি করলেন মুকুলের আইনজীবী।

তিনি বলেন, 'মুকুল রায়ের দলবদল নিয়ে যে ভিডিও ফুটেজ দেওয়া হয়েছে তার সঠিক নয়। তাঁকে উত্তরীয় পরানোর যে ছবি বিধানসভার অধ্যক্ষের কক্ষে পেশ করা হয়েছে তা কোনও দলীয় কর্মসূচিতে নয়। কৃষ্ণনগরের একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে তাকে উত্তরীয় পরানো হয়েছিল।' শুধু তাই নয় এ প্রসঙ্গে মুকুল রায়ের মানসিক অবস্থাকেই হাতিয়ার করেছেন তাঁর আইনজীবী। তাঁর বক্তব্য, 'এটি যে সময়কার ছবি সেই সময় মুকুল রায়ের স্ত্রী অসুস্থ ছিলেন ফলে তাঁর মানসিক অবস্থা ঠিক ছিল না।'

যদিও মুকুল রায়ের আইনজীবীর বক্তব্যের বিরোধিতা করেছেন শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবী। তবে দু'পক্ষের বক্তব্যের পর এদিনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি অধ্যক্ষ। বিধানসভা সূত্রে জানা যাচ্ছে, ৭ জানুয়ারি ফের এই মামলার শুনানি হবে। ওইদিন এই মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করতে পারেন বিধানসভার অধ্যক্ষ।

এর আগে মুকুল রায়ের বিধায়ক পদের বৈধতা নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট বিধানসভার স্পিকারকে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে বলেছিল। তারপরেই রাজ্য বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, ' আদালতের রায় মেনে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'

মুকুল রায়ের বিধায়ক পদের বৈধতা নিয়ে তারও আগে কলকাতা হাইকোর্টে মামলাটি উঠেছিল। সেই মামলায় কলকাতা হাইকোর্টও রাজ্য বিধানসভার স্পিকারকে সিদ্ধান্ত নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু ,হাইকোর্টের এক্তিয়ারকে চ্যালেঞ্জ করে ঠিক সেই সময়ই সুপ্রিমকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।

কৃষ্ণনগর উত্তর থেকে জয়ী হয়ে আসা বিধায়ক মুকুল রায়। বিজেপির টিকিটেই মুকুল রায় কৃষ্ণনগর উত্তর বিধানসভা আসন থেকে জয়ী হন। পরে আবার তিনি তৃণমূলে ফিরে আসেন। তারপরেই শুরু হয় বিতর্ক। তাঁর বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইনে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেয় বিজেপি।

এদিকে, তৃণমূলে ফিরে আসার পর তাকে পিএসির চেয়ারম্যান করা হয়। তাতে বিতর্ক আরও বেড়ে যায়। বিরোধীদের দাবি করে, নিয়ম অনুযায়ী বিরোধী দল থেকেই পিএসির চেয়ারম্যান নিয়োগ করা হয়। কিন্তু, মুকুল রায় শাসক দলে থাকা সত্ত্বেও কেন তাঁকে চেয়ারম্যান করা হলো? সেই অভিযোগে সরব হয়েছিলেন বিজেপি নেতৃত্ব। এর পরেই তাঁকে চেয়ারম্যান নিয়োগ অবৈধ দাবি করে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেছিলেন বিজেপি বিধায়ক অম্বিকা রায়।

 

যদিও সেই সময় মামলার শুনানিতে রাজ্যের প্রাক্তন এডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্তও জানিয়েছিলেন, পিএসি চেয়ারম্যান করার সময় খাতা-কলমে বিজেপি বিধায়ক ছিলেন মুকুল রায়। অন্যদিকে, সুপ্রিম কোর্টের মামলাটি আগামী ২২ জানুয়ারি ওঠার কথা আছে ।

বন্ধ করুন