বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বড়সাহেবকে 'খুশি' করে পদোন্নতির দিন শেষ, দক্ষদের প্রতি সুবিচারের আশ্বাস ফিরহাদের
ফিরহাদ হাকিম। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
ফিরহাদ হাকিম। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

বড়সাহেবকে 'খুশি' করে পদোন্নতির দিন শেষ, দক্ষদের প্রতি সুবিচারের আশ্বাস ফিরহাদের

তিনি জানান, ‘‌প্রত্যেক ওয়ার্ড কো–অর্ডিনেটরকে দুই লক্ষ করে মাস্ক দেওয়া হবে।

শুধুমাত্র অভিজ্ঞ ও কাজে দক্ষ অফিসারদেরই পদোন্নতির সুয়োগ রয়েছে। বড় সাহেবকে 'খুশি' করে প্রোমোশন পাওয়ার দিন শেষ। শুক্রবার এমনই কড়া বার্তাই দিলেন কলকাতার পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম।

কলকাতা পুরনিগমে নিয়োগ ও কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে বলতে গিয়ে পুর প্রশাসক জানান, ‘‌বেশ কিছু ইঞ্জিনিয়র রয়েছেন, যাঁদের অভিজ্ঞতা না থাকা সত্বেও তাঁরা সিনিয়র ইঞ্জিনিয়র হয়েছেন। অন্যদিকে এমন অনেক ইঞ্জিনিয়র রয়েছেন, যাঁরা অভিজ্ঞ ও কাজে দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও জুনিয়র পদে চাকরি করছেন।’‌ ফিরহাদ জানান, এখন আর অফিসে ঢুকে বড়সাহেবকে 'খুশি' করার দিন শেষ। এবার থেকে যারা এক পদে তিন বছর থাকবেন, তাঁদেরকে পদোন্নতির সুযোগ দেওয়া হবে। এগজকিউটিভ পদের জন্য সরকারি নিয়ম মেনে ৪০ শতাংশ পুরনো কর্মীদের পদোন্নতি দেওয়া হবে। ৬০ শতাংশ নতুন কর্মীদের নিয়োগ করা হবে। এর আগে কলকাতা পুরনিগমের ক্ষেত্রে ৫০ শতাংশ পদোন্নতি করা হত। আর ৫০ শতাংশ নতুন নিয়োগ করা হত।

অন্যদিকে, পুজোয় যাতে শহরে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকে, সেজন্য পুরনিগমের ওয়ার্ড কো–অর্ডিনেটরদের বিশেষ বার্তা দিয়েছেন ফিরহাদ হাকিম। এই প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌প্রত্যেক ওয়ার্ড কো–অর্ডিনেটরকে দুই লক্ষ করে মাস্ক দেওয়া হবে। আদালতের নির্দেশ মতো পুজো মণ্ডপগুলিতে যাতে সামাজিক দুরত্ব বজায় থাকে, প্রশাসনকে সে বিষয়ে সচেষ্ট থাকতে হবে।’‌ উল্লেখ্য, গত বছরের মতো এবার হাই কোর্ট মণ্ডপে প্রবেশের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

বন্ধ করুন