বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > নেতৃত্ব শুধু হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ করেই খালাস, ক্ষুব্ধ বিজেপি কর্মীরা
 (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
 (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

নেতৃত্ব শুধু হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ করেই খালাস, ক্ষুব্ধ বিজেপি কর্মীরা

  • তাঁদের মতে, নির্বাচন হয়ে যাওয়ার পর দলের অনেক নেতাই এখন আর ফোন ধরছেন না।

‌ভোট পরবর্তী হিংসায় আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানোর উপায় হিসাবে শুধুই একটা হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ। এভাবে একটা হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ করে ছেড়ে দেওয়া নিয়ে বিজেপি কর্মীদের মধ্যেই এখন ক্ষোভ দানা বেঁধেছে। বিজেপিতে অনেক প্রার্থীই ছিলেন বাইরে থেকে আসা। ফলে সেই সব প্রার্থীরা এখন আর নেই। আর যে সব কর্মীরা এলাকায় রয়েছেন, তাঁরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

গতকাল নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্যে ৬ জন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে রাজ্যের গেরুয়া শিবিরের দাবি। এদিন সাংবাদিক বৈঠক করে একথা জানিয়েছেন রাজ্যের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রাজ্যপাল, নির্বাচন কমিশন থেকে শুরু করে মুখ্য সচিব সকলের কাছেই দরবার করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। পাশাপাশি রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের তরফে সব কর্মীদের জন্য একটি হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজও পাঠানো হয়।সেই মেসেজে নিজেদের আক্রান্ত হওয়ার খবর, ছবি, ভিডিও পাঠাতে বলা হয়েছে।

শুধু বিজেপি নয়, আরএসএসের তরফেও একটি মেসেজ পাঠানো হয়েছে কর্মীদের কাছে।সেই মেসেজে কীভাবে কোথায় অভিযোগ জানাতে হবে সেকথাও বলা হয়েছে।কিন্তু কোনও ফোন নম্বর দেওয়া হয়নি। রাজ্য বিজেপির এই উদ্যোগের পরও দলের নীচু স্তরের কর্মীরা সন্তুষ্ট নন। তাঁদের মতে, নির্বাচন হয়ে যাওয়ার পর দলের অনেক নেতাই এখন আর ফোন ধরছেন না।

মেসেজ পাঠানো নিয়ে দলের মধ্যেই এখন দ্বিমত তৈরি হয়েছে। রাজ্য বিজেপির এক নেতার কথায়,‘‌ব্যক্তিগতভাবে অনেকেই আমাকে জানিয়েছেন, অনেকেই ঘরছাড়া রয়েছেন। থানায় গিয়ে অভিযোগ জানানোর মতো উপায় নেই। বেরোতেই পারছেন না।তাঁদের পক্ষে মেসেজ, ছবি, ভিডিও পাঠানো সম্ভব নয়।’‌ তাঁর কথায়, বিজেপির অনেক আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন বাইরের রাজ্য থেকে আসা।ফলে কর্মীরা অনেক জায়গাতেই কার্যত অনাথ হয়ে গিয়েছেন।

বন্ধ করুন