বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মমতার শপথে চূড়ান্ত অসৌজন্যের নজির বিজেপির, অনুপস্থিত থাকলেন বিধায়করা
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান ছবি সৌজন্য–এএনআই।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান ছবি সৌজন্য–এএনআই।

মমতার শপথে চূড়ান্ত অসৌজন্যের নজির বিজেপির, অনুপস্থিত থাকলেন বিধায়করা

  • এদিন শপথবাক্য পাঠ করালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। বিধানসভা সূত্রে খবর, আজকের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল সাংসদদেরও।

এমনটাই আশঙ্কা করা হচ্ছিল। আর সেই আশঙ্কাই সত্যি হলো। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকলেন বিরোধীদল বিজেপির বিধায়করা। বিধানসভার অন্দরে এই অসৌজন্যের নজির দেখা গেল। যা আগে কখনও দেখা যায়নি। আজ দুপুর ২টোয় বিধানসভায় শপথ নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, জাকির হোসেন এবং আমিরুল ইসলাম।

এদিন শপথবাক্য পাঠ করালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। বিধানসভা সূত্রে খবর, আজকের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল সাংসদদেরও। তবে তাৎপর্যপূর্ণভাবে বিরোধী শিবিরের কারও দেখা পাওয়া যায়নি। কিন্তু সুব্রত বক্সি, মুকুল রায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়–সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। বুধবার রাত পর্যন্ত বিজেপি এই শপথ অনুষ্ঠানে থাকবে কিনা তা সরকারিভাবে কিছুই জানায়নি। তখনই ধরে নেওয়া হয়েছিল চরম অসৌজন্যের নজির তৈরি হতে পারে।

ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের নামিয়ে প্রচার করেছিল। কিন্তু তারপরও সেখানে বিশেষ কিছু ঘটাতে পারেনি। স্বয়ং শুভেন্দু অধিকারী নেমে প্রচার করেছিলেন। সেখানে দেখা যায় রেকর্ড ভাঙা ভোটে জয়ী হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই শপথ অনুষ্ঠানে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা–সহ বিধায়কদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে যখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় এসেছিলেন তখন সিপিআইএম নেতারা তাঁর শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সৌজন্য দেখিয়েছিলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখা গিয়েছিল বিমান বসু এবং বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে নমস্কার করতে। প্রতি নমস্কার করেছিলেন তাঁরাও। শাসক–বিরোধী সেদিন সৌজন্যের নজির সৃষ্টি করেছিলেন। যা আজ ভুলুন্ঠিত হল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

বন্ধ করুন