বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Exclusive: অযোগ্যদের বহাল রেখে কি আগামী প্রজন্মের সর্বনাশ করতে চান মমতা?: পবিত্র সরকার

Exclusive: অযোগ্যদের বহাল রেখে কি আগামী প্রজন্মের সর্বনাশ করতে চান মমতা?: পবিত্র সরকার

শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার। ফাইল ছবি

পবিত্রবাবু বলেন, ‘কারা দুর্নীতি করে চাকরি পেয়েছেন তা আদালত চিহ্নিত করে ফেলেছে। যদি ধরেও নিই এরা চাকরিতে বহাল রইলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত এই শিক্ষকদের কাছ থেকে কী নীতিশিক্ষা পাবে ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা?

অযোগ্যদের চাকরিতে বহাল রাখার প্রস্তাব দিয়ে আগামী প্রজন্মের সর্বনাশ করার পরিকল্পনা করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শিক্ষামন্ত্রীর মন্তব্যে এমনই প্রতিক্রিয়া দিলেন শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার। মুখ্যমন্ত্রীকে তাঁর প্রশ্ন, ‘যে শিক্ষক দুর্নীতি করে চাকরি পেয়েছেন বলে আদালতে চিহ্নিত হয়ে গেছেন তিনিই বা ছাত্রছাত্রীদের সামনে মুখ দেখাবেন কী করে?’

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে আদালতের নির্দেশে বেআইনিভাবে নিযুক্তদের চাকরি থেকে বহিষ্কার এখন প্রায় সময়ের অপেক্ষা। বুধবার আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, অবৈধভাবে নিযুক্তদের চাকরি যাবেই। ৭ নভেম্বরের মধ্যে অবৈধভাবে নিযুক্তরা চাকরিতে ইস্তফা না দিলে তাদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করবে আদালত। মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা যাতে কোনও সরকারি চাকরির পরীক্ষায় তেমন নির্দেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

এই পরিস্থিতিতে বেআইনিভাবে নিয়োগ হয়েছে বলে মেনে নিলেও মুখ্যমন্ত্রী বেআইনিভাবে নিযুক্তদের চাকরি কেড়ে নিতে চান না বলে বুধবার জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তিনি বলেছেন, এজন্য আদালতের কাছে আবেদন জানিয়েছে SSC.

শিক্ষামন্ত্রীর মন্তব্য নিয়ে হিন্দুস্তান টাইমসকে ফোনে শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার জানান, ‘এসব কথা বলে আগামী প্রজন্মের সর্বনাশ করার ব্যবস্থা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। শিক্ষক হতে গেলে নির্দিষ্ট যোগ্যতা প্রমাণ করতে হয়। যে কেউ ইচ্ছা করলেই শিক্ষক হতে পারে না। যার যোগ্যতাই নেই সে ছাত্রছাত্রীদের পড়াবে কী করে? শিক্ষকতা একটি মহান পেশা। সরকারের এসব মন্তব্যে আর পাঁচটা পেশার সঙ্গে শিক্ষকতার কোনও ফারাক থাকছে না।’

পবিত্রবাবু বলেন, ‘কারা দুর্নীতি করে চাকরি পেয়েছেন তা আদালত চিহ্নিত করে ফেলেছে। যদি ধরেও নিই এরা চাকরিতে বহাল রইলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত এই শিক্ষকদের কাছ থেকে কী নীতিশিক্ষা পাবে ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা? আর সেই শিক্ষকরাই বা কী করে ছাত্রছাত্রীদের সামনে মুখ দেখাবেন?’

আক্ষেপের সুরে পবিত্রবাবু বলেন, ‘লজ্জা করে যে সারাটা জীবন এই রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থার পিছনে দিয়েছি। বাড়ি থেকে বেরোতে ইচ্ছা করে না। একজন শিক্ষক হিসাবে এই লজ্জা রাখব কোথায়?’

 

বন্ধ করুন