বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Paresh Adhikary on SSC Recruitment Scam:‘বাড়িতে থাকলে ED কর্তাদের মুড়ি খাওয়াতাম’, শ্লেষ SSC দুর্নীতিতে বিধ্বস্ত পরেশের
এসএসসি দুর্নীতি মামলায় চাকরি গিয়েছে পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতার। (ফাইল ছবি)

Paresh Adhikary on SSC Recruitment Scam:‘বাড়িতে থাকলে ED কর্তাদের মুড়ি খাওয়াতাম’, শ্লেষ SSC দুর্নীতিতে বিধ্বস্ত পরেশের

  • Paresh Adhikary on SSC Recruitment Scam: এসএসসি দুর্নীতি মামলায় চাকরি গিয়েছে পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতার। সেই বিষয়ে সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়েছেন পরেশ। এবার ইডিও তাঁর বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে।

‘আমি বাড়িতে থাকলে ইডির আধিকারিকদের মুড়ি-টুড়ি খাওয়াতাম।’ এমনই মন্তব্য করলেন রাজ্যের শিক্ষা দফতরের প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী। তাঁর দাবি, একুশে জুলাইয়ের সমাবেশের জন্য কলকাতায় এসেছেন। আপাতত কলকাতায় আছেন।

স্কুল সার্ভিস কমিশন (এসএসসি) দুর্নীতি মামলায় শুক্রবার সকালে কোচবিহারের মেখলিগঞ্জে পরেশের বাড়িতে অভিযান চালাচ্ছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। সেই বিষয়ে পরেশ দাবি করেন, তৃণমূল কংগ্রেসের একুশে জুলাইয়ের সমাবেশে যোগ দিতে কলকাতায় এসেছেন। আপাতত কলকাতায় আছেন। ইডির অভিযানের খবর পেয়ে বাড়িতে ফোন করেছিলেন। কিন্তু বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। ফলে বাড়িতে কী হচ্ছে, তা নিয়ে কোনও ধারণা নেই। সেইসঙ্গে পরেশের শ্লেষ, ‘আমি বাড়িতে থাকলে ইডির আধিকারিকদের মুড়ি-টুড়ি খাওয়াতাম।’

আরও পড়ুন: SSC Recruitment Scam: SSC দুর্নীতি মামলায় ময়দানে ED! পার্থ, পরেশের বাড়ি-সহ ১৩ জায়গায় অভিযান

চাকরি থেকে বরখাস্ত পরেশ কন্যা 

প্রভাব খাটিয়ে মেয়েকে বেআইনিভাবে স্কুলে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল পরেশের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনায় সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়েছেন মন্ত্রী। চাকরি গিয়েছে মেয়েরও। গত মে'তে অঙ্কিতাকে চাকরি থেকে বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন: SSC Recruitment Scam: হাইকোর্টের বেঁধে দেওয়া দিনেই সুপারিশপত্র পেলেন ববিতা, চাকরি অঙ্কিতার স্কুলে

সেইসময় বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, শিক্ষক হিসেবে পরিচয় দিতে পারবেন না মন্ত্রীর মেয়ে অঙ্কিতা। কোচবিহারের যে ইন্দিরা উচ্চ বিদ্যালয়ে 'শিক্ষকতা' করতেন, সেই স্কুলে ঢুকতে না দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। সঙ্গে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, স্কুলে ‘শিক্ষকতার’ জন্য ৪১ মাস যে বেতন পেয়েছেন অঙ্কিতা, তার পুরোটা দুটি কিস্তিতে ফেরত দিতে হবে। হাইকোর্টের নির্দেশ মতো চাকরি থেকে বরখাস্ত হন অঙ্কিতা। ইন্দিরা উচ্চ বিদ্যালয়ে চাকরি পান মামলাকারী ববিতা সরকার। 

বন্ধ করুন