বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Partha-Arpita: জামিন খারিজ পার্থ–অর্পিতার, আরও ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ আদালতের

Partha-Arpita: জামিন খারিজ পার্থ–অর্পিতার, আরও ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ আদালতের

পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

গত ৫ অগস্ট পার্থ–অর্পিতাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল ব্যাঙ্কশাল কোর্ট। সেই জেল হেফাজত কাটিয়ে এদিন তাঁদের আদালতে তোলা হয়। আদালতে এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবী জামিনের আবেদন জানান। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দিয়ে আগামী ৩১ অগস্ট পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারপতি।

বৃহস্পতিবার তাঁর জামিন চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু ইডি’‌র প্রবল বিরোধিতায় তা খারিজ হয়ে গেল। ফলে আরও ১৪ দিন জেল হেফাজতে থাকতে হবে পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে। আজ ব্যাঙ্কশাল কোর্টে তোলা হয় দু’‌জনকে। সেখানেই তাঁদের জামিনের আবেদন খারিজ করে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত পার্থ–অর্পিতাকে জেল হেফাজত থাকার নির্দেশ দিল আদালত। আদালতে পার্থর আইনজীবী টেকনিক্যাল কারণ দেখিয়ে জামিনের আবেদন করেন। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ হয়ে যায়। আর তাঁকে আবার জেলেই পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন বিচারক।

ঠিক কী ঘটেছে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে?‌ এদিন আদালতে ইডি জানায়, বুধবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাঁর ফোন থেকে জীবন বিমা সংক্রান্ত তথ্য পাওয়ার কথা প্রাক্তন মন্ত্রীকে জানানো হয়। পার্থকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর, তাঁর বয়ানের কাগজ সই করতে বলা হয়। তখন পার্থ তা ছিঁড়ে ফেলে দেন। বৃহস্পতিবার আদালতে এই দাবি করেছেন ইডির আইনজীবী। পার্থকে জেলে গিয়ে জেরা করার অনুমতি পেয়েছিল ইডি। কিন্তু দেখা গিয়েছে, আদালতে পেশ করার আগের দিন প্রাক্তন মন্ত্রীকে জেরা করেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। আদালতে ইডির বিরুদ্ধে সময় নষ্টের অভিযোগ করেছেন পার্থের আইনজীবী।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ এদিন ইডি’‌র আইনজীবীর দাবি, পার্থ চট্টোপাধ্যায় তদন্তে সহযোগিতা করেননি। এমনকী অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে বিপুল অর্থের উৎস সম্পর্কেও মুখ খোলেননি প্রাক্তন মন্ত্রী। আর পার্থের আইনজীবী জানান, ১২ তারিখ প্রাক্তন মন্ত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। তাঁকে চিকিৎসকদের শরণাপন্ন হতে হয়। তাই সব দিক বিবেচনা করে পার্থবাবুকে জামিন দেওয়া হোক। ইডি বিরোধিতা করে জানায়, এই বয়সে এমন শরীর খারাপ স্বাভাবিক। তবে প্রথমে ৫০টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের কথা জানা গিয়েছিল। এখন আরও ১০টি অ্যাকাউন্টের খোঁজ পাওয়া মিলেছে। পার্থর আইনজীবী জানান, প্রাক্তন মন্ত্রীর চিকিৎসার প্রয়োজন। দ্রুত চিকিৎসা না হলে বিপদ হতে পারে। কিন্তু তারপরও জামিন মেলেনি।

উল্লেখ্য, গত ৫ অগস্ট পার্থ–অর্পিতাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল ব্যাঙ্কশাল কোর্ট। সেই জেল হেফাজত কাটিয়ে এদিন তাঁদের আদালতে তোলা হয়। আদালতে এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবী জামিনের আবেদন জানান। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দিয়ে আগামী ৩১ অগস্ট পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারপতি।

বন্ধ করুন