বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Nabanna: পার্থের ব্যক্তিগত সচিব এবং ওএসডি কম্পালসারি ওয়েটিংয়ে, বিজ্ঞপ্তি নবান্নের
পার্থ চট্টোপাধ্যায়  (Utpal Sarkar)

Nabanna: পার্থের ব্যক্তিগত সচিব এবং ওএসডি কম্পালসারি ওয়েটিংয়ে, বিজ্ঞপ্তি নবান্নের

  • পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে রাখা হয়েছে প্রেসিডেন্সি জেলে। আগে থেকেই তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে রাখা হয়েছে আলিপুর মহিলা সংশোধনাগার। সেখানেও সব ব্যবস্থা তৈরি রাখা হয়েছিল। ব্যাঙ্কশাল কোর্টের নির্দেশে, দু’জনেরই নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে।

আরও কড়া সিদ্ধান্ত নিল নবান্ন। এবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ব্যক্তিগত সচিব সুকান্ত আচার্য এবং অফিসার অন স্পেশা‌ল ডিউটি (ওএসডি) প্রবীর বন্দ্যোপাধ্যায়কে কম্পালসারি ওয়েটিংয়ে পাঠিয়ে দিল রাজ্য। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অধীনে থাকা কর্মিবর্গ দফতর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমনকী নবান্ন থেকে জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে। জেল হেফাজতে পার্থ চট্টোপাধ্যায় যেতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে নবান্ন।

কেন এই কম্পালসারি ওয়েটিং?‌ জানা গিয়েছে, ২০১১ সালে পার্থ চট্টোপাধ্যায় শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন। তখন তাঁর ব্যক্তিগত সচিব ছিলেন সুকান্ত আচার্য। আবার রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী হওয়ার পরও সুকান্তই ছিলেন তাঁর ব্যক্তিগত সচিব। আর পরিষদীয় দফতরে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ওএসডি ছিলেন প্রবীর বন্দ্যোপাধ্যায়। এসএসসি দুর্নীতি মামলা পার্থ চট্টোপাধ্যায় গ্রেফতার হতেই সুকান্ত–প্রবীর দু’জনেই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরে আসে। সুকান্তর বাড়িতে তল্লাশি করে ইডি। জেরা পর্যন্ত করা হয়। এই দুই আধিকারিকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় কম্পালসারি ওয়েটিংয়ে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিল নবান্ন। দু’জনই ডব্লিউবিসিএস এক্সিকিউটিভ অফিসার। নিয়োগ দুর্নীতিতে দু’জনের নাম জড়িয়েছে। তাঁরা কর্মরত থাকলে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হতে পারে বলে এমন সিদ্ধান্ত।

উল্লেখ্য, গত ২২ জুলাই পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নাকতলার বাড়িতে যায় ইডি। সেখানে চলে জিজ্ঞাসাবাদ। পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের বাড়িতেও তল্লাশি চালায় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (‌ইডি)‌। অর্পিতার টালিগঞ্জের ফ্ল্যাট থেকে ২১ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা, সোনা, বিদেশি মুদ্রা বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ। এরপর বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাট থেকে ৩০ কোটি টাকা নগদ উদ্ধার হয়। যদিও এখন দু’‌জনেই বলছেন, এই টাকা তাঁদের নয়।

কাকে কোথায় রাখা হচ্ছে?‌ পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে রাখা হয়েছে প্রেসিডেন্সি জেলে। আগে থেকেই তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে রাখা হয়েছে আলিপুর মহিলা সংশোধনাগার। সেখানেও সব ব্যবস্থা তৈরি রাখা হয়েছিল। ব্যাঙ্কশাল কোর্টের নির্দেশে, দু’জনেরই নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে। অর্পিতার প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কার কথা সামনে আসতেই তাঁর খাবার এবং জল পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

বন্ধ করুন