বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌ নিয়ে অভিনব ট্রাম তৈরি, দেশভাগের স্মৃতি নিয়ে শহরে ঘুরবে
অভিনব ট্রাম নামাল কলকাতা ট্রাম কর্পোরেশন। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌।
অভিনব ট্রাম নামাল কলকাতা ট্রাম কর্পোরেশন। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌।

‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌ নিয়ে অভিনব ট্রাম তৈরি, দেশভাগের স্মৃতি নিয়ে শহরে ঘুরবে

  • দেশভাগের দগদগে ঘা সেখানে স্থান পেয়েছে। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই বাংলার পরিবহনমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম উদ্বোধন করেন এই ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌ ট্রামের।

এই বছর স্বাধীনতার ৭৫তম দিবসে পদার্পণ করেছে দেশ। কিন্তু এই স্বাধীনতা পেতে করতে হয়েছে কঠিন লড়াই, সংগ্রাম, আন্দোলন। স্বদেশি আন্দোলন থেকে বঙ্গভঙ্গের ঘটনা ইতিহাসের পাতায় পাতায় আজও উজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। এবার ৭৫তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে কল্লোলিনী কলকাতায় অভিনব ট্রাম নামাল কলকাতা ট্রাম কর্পোরেশন। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌।

দেশভাগের দগদগে ঘা সেখানে স্থান পেয়েছে। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই বাংলার পরিবহনমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম উদ্বোধন করেন এই ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌ ট্রামের। নতুন প্রজন্মের কাছে দেশভাগের স্মৃতি তুলে ধরতেই এই অভিনব ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে খবর। এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লন্ডন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দেন লর্ড মেঘনাদ দেশাই এবং কিশোয়ার দেশাই, মল্লিকা আহলুওয়ালিয়া ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌–এর কিউরেটর এবং সিইও।

কেমন করে তৈরি করা হয়েছে?‌ এই ‘‌পার্টিশন মিউজিয়াম’‌ নির্মাণ করা হয়েছে দুটি ট্রামকে এক করে। প্রথম ট্রামে ১৯০০ সাল থেকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের নানান স্মৃতি তুলে ধরা হয়েছে। ১৯০০ থেকে ১৯৪৭ সালের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলির উপর নির্ভর করে স্বাধীনতা লাভের নানান চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। দ্বিতীয় ট্রামে দেশভাগের পরে ঘটে যাওয়া দেশান্তর এবং উদ্বাস্তু সমস্যা তুলে ধরা হয়েছে। এই সংগ্রহশালাটি এই বছরের শেষ পর্যন্ত ধর্মতলায় প্রদর্শিত হবে।

এই বিষয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘‌ভারত একটি শান্তিপূর্ণ দেশ। বাংলা বিবিধের মাঝে ঐক্য ও সম্প্রীতিতে বিশ্বাস রাখে। ট্রামে এই সংগ্রহশালা বাংলার নৈতিকতার প্রতিফলন ঘটায়। এটি স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলার ভূমিকাকে তুলে ধরে। মিউজিয়াম অন হুইলস বাংলার স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং জাতীয় মানসিকতার উপর বাংলা ও পাঞ্জাব বিভাজনের প্রভাবকে তুলে ধরে।’‌ ১ জানুয়ারি, ২০২২ থেকে মিউজিয়ামটি শহরের নানান প্রান্তে ঘুরবে।

বন্ধ করুন