বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Online fraud: নামী সংস্থার নামে ভুয়ো ওয়েবসাইট বানিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজির খোলার টোপ, ধৃত ৩

Online fraud: নামী সংস্থার নামে ভুয়ো ওয়েবসাইট বানিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজির খোলার টোপ, ধৃত ৩

মিও আমরের নামে ভুয়ো ওয়েবসাইট খুলে প্রতারণা। 

এই অভিযোগ উঠতেই পুলিশ ইতিমধ্যেই তিনজনকে গ্রেফতার করেছেম বিহার এবং কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে একাধিক মোবাইল ফোনসহ এটিএম কার্ড, ব্যাঙ্কের পাসবই প্রভৃতি। ধৃতদের নাম হল প্রিন্স রাজ, ধর্মেন্দ্র রাম এবং নীতিশ কুমার।

রাজ্যে লকডাউনের পর থেকেই বেড়েছে অনলাইনে লেনদেন। আর তেমনই অনলাইনে প্রতারণাও বেড়েছে। কখনও মোবাইল টাওয়ার বসানোর নাম করে, কখনো ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানোর নাম করে আবার কখনও টিকিট কাটার নাম করে চলছে প্রতারণা। এরজন্য নিত্যনতুন কায়দা অবলম্বন করছে প্রতারকরা। এবার একটি নামে বেসরকারি খাদ্য সংস্থার নাম করে ভুয়ো ওয়েবসাইট বানিয়ে বহু মানুষের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারকরা। বেসরকারি সংস্থা মিও আমোরে’র নাম করে ভুয়ো ওয়েবসাইট বানিয়ে বহু মানুষের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ উঠল।

এই অভিযোগ উঠতেই পুলিশ ইতিমধ্যেই তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। বিহার এবং কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে একাধিক মোবাইল ফোনসহ এটিএম কার্ড, ব্যাঙ্কের পাসবই প্রভৃতি। ধৃতদের নাম হল প্রিন্স রাজ, ধর্মেন্দ্র রাম এবং নীতিশ কুমার। এর মধ্যে একজনকে বিহার থেকে এবং দুজনকে কলকাতা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, দুষ্কৃতীরা প্রথমে মিও আমোরের নামে একটি ভুয়ো ওয়েবসাইট তৈরি করে। এরপর সেই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফ্র্যাঞ্চাইজি খোলার প্রলোভন দেখায়। মানুষের বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জনের জন্য ভুয়ো নথিও দিত তারা। এভাবেই বহু মানুষের কাছ থেকে তারা টাকা হাতিয়ে নিয়েছিল। বিষয়টি বুঝতে পেরে এক ব্যক্তি থানায় অভিযোগ দায়ের করেনম তার ভিত্তিতে কলকাতা পুলিশ এবং সাইবার পুলিশ যৌথভাবে তদন্ত চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করে। এই ঘটনার পরে মিও আমোরের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ‘সকলকে বিশ্বাস করবেন না। লেনদেনের ক্ষেত্রে আগে ওয়েবসাইট ঠিক করে যাচাই করে নেবেন।’

বন্ধ করুন