বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Ekbalpur incident: তল্লাশির নামে খাস Ekbalpur incident: কলকাতায় যুবকের কাছ থেকে ৩৩ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিল পুলিশ! ধৃত ৪

Ekbalpur incident: তল্লাশির নামে খাস Ekbalpur incident: কলকাতায় যুবকের কাছ থেকে ৩৩ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিল পুলিশ! ধৃত ৪

যুবকের কাছ থেকে টাকা লুঠ করে ধৃত ৪। প্রতীকী ছবি

যুবকের নাম মহম্মদ আরবাজ। তিনি একটি বেসরকারি সংস্থা কাজ করেন। সেই সূত্রেই বুধবার ৩৩ লক্ষ টাকা তিনি ব্যাঙ্কে জমা দিতে যাচ্ছিলেন। তার এক বন্ধুও সঙ্গে ছিলেন। তখনই চারজন পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের পথ আটকায়। এরপরে তারা যুবকের ব্যাগে তল্লাশি চালিয়ে ওই টাকা এই পরিমাণ টাকা দেখতে পায় পুলিশ।

রক্ষকই ভক্ষক! খাস কলকাতায় ফের পুলিশের বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠল। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে। একবালপুর এলাকায় এক যুবকের কাছ থেকে ৩৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ পেয়ে ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের দুই কনস্টেবল, এক সিভিক পুলিশ সহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃত ২ কনস্টেবল একবালপুর থানায় কর্মরত বলে জানা গিয়েছে।

পুলিশ সূত্রের খবর, ওই যুবকের নাম মহম্মদ আরবাজ। তিনি একটি বেসরকারি সংস্থা কাজ করেন। সেই সূত্রেই বুধবার ৩৩ লক্ষ টাকা তিনি ব্যাঙ্কে জমা দিতে যাচ্ছিলেন। তার এক বন্ধুও সঙ্গে ছিলেন। তখনই চারজন পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের পথ আটকায়। এরপরে তারা যুবকের ব্যাগে তল্লাশি চালিয়ে ওই টাকা এই পরিমাণ টাকা দেখতে পায় পুলিশ। সেখান থেকে দুই যুবককে নিয়ে যাওয়া হয় একটি হোটেলে। পরে দুজনকে মারধর করে পুলিশ এবং ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। শেষে দুজনকে একবালপুর থানাতে নিয়ে যায় পুলিশ।পরে খবর পেয়ে সেখানে যান ওই সংস্থার এক কর্তা। তিনি পুলিশকে জানান, সংস্থার টাকা ব্যাঙ্কে জমা দিতে গিয়েছিলেন ওই যুবক। তখনই দুই পুলিশ কনস্টেবলের পর্দা ফাঁস হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত ২ কনস্টেবলের নাম হল প্রভাত বেরা এবং স্বপন কুমার বিশ্বাস। সিভিক ভলেন্টিয়ারের নাম টোটন। তাদের কাছ থেকে ৩০ লক্ষ টাকা উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনায় আরও বেশ কয়েকজন জড়িত আছে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা। তাদের মধ্যে দুজনের নাম পুলিশ জানতে পেরেছে পুলিশ। তাদেরকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। উল্লেখ্য, একই ধরনের ঘটনা ঘটেছিল গত অগস্টে। মধ্য কলকাতার তালতলা এলাকায় ব্যাঙ্কে টাকা জমা দিতে যাচ্ছিলেন এক যুবক। সে সময় তল্লাশির অজুহাতে তাঁর কাছ থেকে প্রায় ১ কোটি টাকা ছিনিয়ে নিয়েছিল দু’জন কনস্টেবল।

বন্ধ করুন