বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > রাস্তায় সন্তান প্রসব, অসহায় মা ও শিশুর ‘‌ত্রাতা’‌ হয়ে এগিয়ে এলেন পুলিশ আধিকারিক
তিলজলা ট্র‌্যাফিক গার্ডের অ্যাডিশনাল ওসি সৌভিক চক্রবর্তী। ছবি সৌজন্য :‌ কলকাতা পুলিশ
তিলজলা ট্র‌্যাফিক গার্ডের অ্যাডিশনাল ওসি সৌভিক চক্রবর্তী। ছবি সৌজন্য :‌ কলকাতা পুলিশ

রাস্তায় সন্তান প্রসব, অসহায় মা ও শিশুর ‘‌ত্রাতা’‌ হয়ে এগিয়ে এলেন পুলিশ আধিকারিক

  • এক বিন্দু সময় নষ্ট না করে মা এবং সদ্যোজাত শিশুপুত্রকে গাড়িতে তুলে চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের দিকে ছোটেন সৌভিক।

রক্ষাই করলেন রক্ষক। একটি নয়, দুটি প্রাণ বাঁচালেন তিলজলা ট্র‌্যাফিক গার্ডের অ্যাডিশনাল ওসি সৌভিক চক্রবর্তী। মঙ্গলবার দুপুরে ১টা নাগাদ তখন নিয়মমাফিক টহল দিচ্ছিলেন তিনি। বাসন্তী হাইওয়ের ওপর চৌবাগার কাছে হঠাৎ তাঁর কানে আসে আর্তচিৎকার। দেখা যায়, রাস্তার ধারে শুয়ে অসহ্য গর্ভযন্ত্রণায় ছটফট করছেন এক মহিলা। আর তার কয়েক মিনিটের মধ্যে ঘটনাস্থলেই এক পুত্রসন্তান প্রসবও করেন তিনি।

স্থানীয় কয়েকজনের সহায়তায় প্রসব হলেও এই মুহূর্তে চিকিৎসা প্রয়োজন সদ্যোজাত ও তার মায়ের। এক বিন্দু সময় নষ্ট না করে মা এবং সদ্যোজাত শিশুপুত্রকে গাড়িতে তুলে চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের দিকে ছোটেন সৌভিক। মুহূর্তের মধ্যে গ্রিন করিডোরের ব্যবস্থা করে ফেলেন তিনি। ট্র‌্যাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ করে তিনি বলেন যাতে তাঁদের যাত্রাপথের প্রতিটি ট্র‌্যাফিক সিগন্যাল খোলা থাকে।

চৌবাগা থেকে চিত্তরঞ্জন হাসপাতাল পর্যন্ত সঙ্গে সঙ্গে তৈরি হয়ে যায় গ্রিন করিডর। একটি বাড়তি সেকেন্ডও নষ্ট না করে তাঁরা পৌঁছে যান হাসাপাতলে। যাওয়ার পথেই ফোনে ওই মহিলার পরিবারের সদস্যদের পুরো ঘটনার কথা জানান সৌভিক। হাসপাতালে পৌঁছে নির্দিষ্ট বিভাগে মহিলার ভর্তির ব্যবস্থা করাই শুধু নয়, প্রয়োজনীয় ওষুধপত্রও কিনে দেন তিলজলা ট্র‌্যাফিক গার্ডের ওই আধিকারিক। হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক বিভাগে যত্নে রয়েছে শিশু। মা–ছেলে দু’‌জনেই এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।

বন্ধ করুন