বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > পিছিয়ে গেল CISCE বোর্ডের দ্বাদশের প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষা, নতুন সময় জেনে নিন
পিছিয়ে গেল CISCE বোর্ডের দ্বাদশের প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষা, নতুন সময় জেনে নিন। প্রতীকী ছবি। 

পিছিয়ে গেল CISCE বোর্ডের দ্বাদশের প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষা, নতুন সময় জেনে নিন

  • এর আগে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে দ্বাদশের প্র্যাক্টিক্যাল পরীক্ষা ও প্রজেক্ট পেপার জমা নেওয়ার শেষ দিন ছিল।

গত দু'বছর ধরে পিছু ছাড়ছে না করোনা। নতুন বছরেও করোনার বাড়বাড়ন্তের কারণে রাজ্যজুড়ে বিধি-নিষেধ জারি করেছে সরকার। সমস্ত স্কুল-কলেজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এই অবস্থায় মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা অফলাইনে করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। এরই মধ্যে দ্বাদশের প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষা পিছিয়ে দিল সিআইএসসিই বোর্ড।

এর আগে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে দ্বাদশের প্র্যাক্টিক্যাল পরীক্ষা ও প্রজেক্ট পেপার জমা নেওয়ার শেষ দিন ছিল। তবে স্কুলগুলোতে টিকাকরণের কাজ চলার এবং কোভিড পরিস্থিতির কারণে আপাতত তা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বোর্ড। তার পরিবর্তে এই সময় সীমা বাড়িয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি করা হয়েছে ।

তবে কোভিড কালে আগামী ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত সমস্ত স্কুল কলেজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠেছে বিধি নিষেধের সময়সীমা যদি বারে তাহলে ওই সময়ই কি প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষা নেওয়া হবে? শিক্ষকদের অবশ্য বক্তব্য, রাজ্য বিধিনিষেধ রয়েছে আগামী ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত । ফলে তার পরেও যদি বিধি নিষেধ বারে সেক্ষেত্রে খুব বেশি হলে জানুয়ারি মাস পর্যন্ত বিধি নিষেধ চলতে পারে। ফলে সময় সীমা বাড়ায় প্রাক্টিক্যাল পরীক্ষার আয়োজন করাটা বিশেষ অসুবিধার হবে না শিক্ষকদের।

প্রসঙ্গত, করোনার বাড়বাড়ন্তের কারণে রাজ্যের স্কুলগুলোতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত টিকাকরণের কাজ চলছে। একাধিক স্কুলে যেমন টিকা করণ শেষের দিকে আবার বেশ কিছু স্কুলে এই টিকা দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। তবে বুধবার সময়সীমা বাড়ানো নিয়ে বোর্ড বিজ্ঞপ্তি জারি করায় স্বস্তি পেলেন পড়ুয়া থেকে অভিভাবকরা।

এর পাশাপাশি স্বস্তি পেলেন স্কুলের শিক্ষকরা। রামমোহন মিশন হাই স্কুলের অধ্যক্ষ সুজয় বিশ্বাস জানিয়েছেন, 'টিকা নেওয়ার পর অনেকের জ্বর আসে। ফলে পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য আরও কিছুটা সময় দরকার ছিল। সময় বাড়িয়ে দেওয়ায় পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া সম্ভব হবে।' করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পরীক্ষা হলে সেক্ষেত্রে যে কোভিড বিধি কড়াকড়িভাবে মানা হবে সে কথা জানিয়েছেন ন্যাশনাল ইংলিশ স্কুলের অধক্ষ্যা মৌসুমী সাহা।

বন্ধ করুন