বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > শনিবার থেকে রাস্তায় নামছে ৩,৫০০ বেসরকারি বাস, যন্ত্রণা-মুক্তির আশায় আমজনতা
আগামিকাল থেকেই এই চিত্র দেখা যেতে পারে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)
আগামিকাল থেকেই এই চিত্র দেখা যেতে পারে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)

শনিবার থেকে রাস্তায় নামছে ৩,৫০০ বেসরকারি বাস, যন্ত্রণা-মুক্তির আশায় আমজনতা

বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের তরফে জানানো হয়েছে, আগামীকাল থেকে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার বাস পথে নামছে।

পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের আশ্বাসের পর রাস্তায় নামছে বেসরকারি বাস। আগামিকাল থেকে প্রায় সাড়ে তিন হাজার বাস নামছে রাস্তায়। এর ফলে রাস্তায় গণপরিবহণ ব্যবস্থা আরও কিছুটা সচল হবে বলেই ওয়াকিবহল মহলের মত।

এদিন পরিবহণ মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের প্রতিনিধিরা। এদিনের বৈঠকের পর অতিরিক্ত বাস পথে নামানোর কথা জানিয়ে দেন বাস মালিকরা। বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের তরফে জানানো হয়েছে, আগামিকাল থেকে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার বাস পথে নামছে। এর ফলে নিত্যযাত্রীদের কষ্ট অনেকটাই লাঘব হবে। এই প্রসঙ্গে পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, জনস্বার্থের কথা মাথায় রেখে আগে সব বাস রাস্তায় নামানো হোক। তারপরে ধীরে ধীরে বাস ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করা হবে। বাস মালিকদের একাংশের অবশ্য দাবি, অনেক যাত্রীরা নিজেরাই জানিয়েছেন, বাস ভাড়া বাড়ানো দরকার। কিন্তু রাজ্য সরকার বাস ভাড়া বাড়ানোর অনুমোদন দিচ্ছে না। ফলে বাস মালিকরা সমস্যায় পড়ছেন। তবে রাজ্য সরকারের মতে, করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের দুর্দশার শেষ নেই। তার মধ্যে বাস ভাড়া বাড়ানো হলে মানুষের দুর্দশা কমবে না।

এদিন পরিবহণ মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের প্রতিনিধিরা। এদিনের বৈঠকের পর অতিরিক্ত বাস পথে নামানোর কথা জানিয়ে দেন বাস মালিকরা। বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের তরফে জানানো হয়েছে, আগামিকাল থেকে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার বাস পথে নামছে। এর ফলে নিত্যযাত্রীদের কষ্ট অনেকটাই লাঘব হবে। এই প্রসঙ্গে পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, জনস্বার্থের কথা মাথায় রেখে আগে সব বাস রাস্তায় নামানো হোক। তারপরে ধীরে ধীরে বাস ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করা হবে। বাস মালিকদের একাংশের অবশ্য দাবি, অনেক যাত্রীরা নিজেরাই জানিয়েছেন, বাস ভাড়া বাড়ানো দরকার। কিন্তু রাজ্য সরকার বাস ভাড়া বাড়ানোর অনুমোদন দিচ্ছে না। ফলে বাস মালিকরা সমস্যায় পড়ছেন। তবে রাজ্য সরকারের মতে, করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের দুর্দশার শেষ নেই। তার মধ্যে বাস ভাড়া বাড়ানো হলে মানুষের দুর্দশা কমবে না।|#+|

উল্লেখ্য, ১ জুলাই থেকে ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি বাস চালানোর অনুমতি দিয়েছে রাজ্য সরকার। কিন্তু ভাড়া বাড়ানোর পক্ষে সায় না দেওয়ায় অনেক বেসরকারি বাসই রাস্তায় নামেনি। তবে এদিন পরিবহণ মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর অনেক বাসকেই রাস্তায় নামতে দেখা যাবে বলে ওয়াকিবহল মহলের মত। এবারের বাজেটে করোনা পরিস্থিতিকে মাথায় রেখে রোড ট্যাক্সে ছাড়ের সময়সীমা আরও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত রোড ট্যাক্স মকুবের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে অধিকাংশ বাস মালিকরা। এই পরিস্থিতিতে সরকারের সঙ্গে নতুন করে আর সংঘাতের পথে যেতে চায় না বাস মালিকরা। ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি যাতে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হয়, সে বিষয়ের ওপরেই জোর দিচ্ছেন বাস মালিকরা।

বন্ধ করুন