Prime Minister Narendra Modi at Belur Math, in Kolkata on Sunday. (ANI Photo)
Prime Minister Narendra Modi at Belur Math, in Kolkata on Sunday. (ANI Photo)

বেলুড় মঠে মোদীর 'রাজনৈতিক ভাষণ', পাশে নেই ইঙ্গিতে বোঝাল রামকৃষ্ণ মিশন

  • অতিথিকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করা ভারতীয় সংস্কৃতির পরিপন্থী, বললেন মঠের সাধারণ সম্পাদক সুবীরানন্দ মহারাজ

চিরন্তনের আহ্বানে গৃহত্যাগী হয়েছেন সন্ন্যাসীরা। তাই জাগতিক ব্যাপারে মন্তব্য করেন না তাঁরা। রবিবার বেলুড় মঠে প্রধানমন্ত্রীর CAA প্রসঙ্গ উত্থাপন সম্পর্কে মন্তব্য করতে অস্বীকার করে একথাই বললেন রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সাধারণ সম্পাদক সুবীরানন্দ মহারাজ। তিনি বলেন, দেশের প্রধানমন্ত্রী তাঁরে প্রতিষ্ঠানে রাত কাটাতে চান, এটা তাঁদের কাছে গর্বের ব্যাপার।

শনিবার বিকেলে কলকাতার কর্মসূচি সেরে লঞ্চে বেলুড় মঠে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রাথমিক সফরসূচিতে রাতে কলকাতায় ফিরে রাজভবনে প্রধানমন্ত্রীর রাত্রিবাসের কথা থাকলেও পরে তা বদল করেন তিনি। পরদিন বিবেকানন্দের জন্মদিন জেনে বেলুড় মঠেই রাত্রিযাপনের ইচ্ছাপ্রকাশ করেন মোদী। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছাকে স্বীকৃতি দিয়ে রাতারাতি বেলুড় মঠে প্রধানমন্ত্রীর থাকার বন্দোবস্ত করে কর্তৃপক্ষ।

রবিবার সকালে জাতীয় যুব দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নিজের বক্তব্যে সিএএ প্রসঙ্গ তোলেন প্রধানমন্ত্রী। রীতিমতো রাজনৈতিক ভাষণে বিরোধীদের বিদ্ধ করেন তিনি। বলেন, ‘CAA কারও নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য তৈরি হয়নি। CAA হয়েছে নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য। কিন্তু কিছু মানুষ রাজনৈতিক সুবিধার জন্য এটা বুঝেও বুঝছে না।’ সামনে উপস্থিত পড়ুয়াদের প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন ছিল, ‘তাহলে কি পাকিস্তানে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার মানুষদের কি আবার পাকিস্তানে ফিরিয়ে দেব?’

বেলুড় মঠের মতো অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক ভাষণের সমালোচনায় সরব হন বিরোধীরা। রবিবার এই নিয়ে সুবীরানন্দ মহারাজকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘সন্ন্যাসীরা চিরন্তনের আহ্বানে ঘর ছেড়েছেন। তাঁরা এসব জাগতিক ব্যাপারে মন্তব্য করেন না।’ তিনি বলেন, ‘বেলুর মঠে প্রধানমন্ত্রীর আসা ঘরের ছেলে ঘরে ফেরার মতো। প্রধানমন্ত্রী যে আমাদের প্রতিষ্ঠানে রাত কাটাতে চেয়েছেন তা নিঃসন্দেহে আমাদের কাছে সম্মানের। কিন্তু তিনি প্রধানমন্ত্রী ও আমাদের অতিথি। অতিথি সম্পর্কে কোনও বিরূপ মন্তব্য করা ভারতীয় ঐতিহ্যের পরিপন্থী।’

সরাসরি কিছু না বললেও সুবীরানন্দের মন্তব্যে এটুকু স্পষ্ট, বেলুড় মঠে মোদীর রাজনৈতিক ভাষণের পাশে নেই রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন। বললে, বিরূপই বলতে হত, তাই নিজেদের সংযত রাখলেন সন্ন্যাসীরা।

বন্ধ করুন