বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Remote Voting: পরিযায়ী শ্রমিকদের রিমোট ভোটিংয়ে ঘোর আপত্তি TMC'র, কারণটা কী?

Remote Voting: পরিযায়ী শ্রমিকদের রিমোট ভোটিংয়ে ঘোর আপত্তি TMC'র, কারণটা কী?

এভাবেই অতিমারিতে গুরুগ্রাম থেকে বাংলায় ফেরার চেষ্টা করেছিলেন পরিযায়ী শ্রমিক পরিবার। ফাইল ছবি: এএনআই।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, বাংলা থেকে প্রচুর শ্রমিক কাজের জন্য বিজেপি শাসিত রাজ্য়ে চলে যান। সেক্ষেত্রে সেই রাজ্যের উন্নতি দেখে তারা প্রভাবিত হতে পারেন। সেকারণেই কি আপত্তি তুলছে তৃণমূল?

পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য রিমোট ভোটিংয়ের কথা জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। এনিয়ে মতামত চেয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কাছে কমিশনের তরফে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। তবে এবার সর্বভারতীয় তৃণমূল জানিয়ে দিল রিমোট ভোটিংয়ের ব্যাপারে তারা একমত নয়। তারা এনিয়ে আপত্তি তুলেছে। দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্যায় চিঠি দিয়ে এনিয়ে আপত্তির কথা জানিয়ে দিয়েছেন।

চিঠিতে লেখা হয়েছে, এই পদ্ধতিতে ভিনরাজ্যে কাজে যাওয়া শ্রমিকদের জন্য রিমোট ভোটিংয়ের ব্যবস্থা করা হলে তা যথাযথ হবে না। গোটা প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা ও পবিত্রতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

এনিয়ে তিনি চিঠিতে একাধিক উদ্বেগের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি লিখেছেন,

১) যেখানে পরিযায়ী শ্রমিকরা থাকছেন সেখানে ভোট না হতে পারে। সেক্ষেত্রে সেখানকার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের নানাভাবে প্রভাবিত করতে পারে।

২)সংশ্লিষ্ট এলাকার শাসকদল নানাভাবে পরিযায়ী শ্রমিকদের ভোটদানকে প্রভাবিত করতে পারে।

৩)এই পদ্ধতিতে ভোট করা হলে ইভিএম মেশিনের সুরক্ষা নিয়েও বড় প্রশ্ন উঠবে। কারণ এর আগে দেখা গিয়েছে একাধিক রাজনৈতিক নেতার বাড়ি ও গাড়ি থেকে ইভিএম উদ্ধার করা হয়েছে।

৪)এবারই প্রথম নয়, ব্লক চেইন প্রযুক্তির মাধ্যমে ভোট করানোর ব্য়াপারে আগেও বলেছিল কমিশন। কিন্তু এর সুরক্ষা ও স্বচ্ছতা নিয়ে আগেই আপত্তি তোলা হয়েছিল।

৫) এদিকে ভৌগলিক দিক থেকে ওই ভোটার দূরে থাকেন। তিনি রাজ্যের ও তাঁর কেন্দ্রের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল নন। সেক্ষেত্রে তাঁর সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে।

৬) এদিকে এই ধরনের ভোট দেওয়ার প্রক্রিয়াটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস নির্ভর। সেক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে পারেন সংশ্লিষ্ট পরিযায়ী শ্রমিক।

চিঠিতে লেখা হয়েছে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের অধিকার প্রতি নাগরিকের রয়েছে। কিন্তু ভোট প্রক্রিয়ার প্রতি যদি তাদের আস্থা থাকে তবেই এটা সম্ভব হয়। মনে করা হচ্ছে এই ভোটিং প্রক্রিয়ার মাধ্য়মে কোনও একটি রাজনৈতিক দলের সুবিধা হতে পারে। সামগ্রিকভাবে এই ব্যবস্থার মাধ্যমে সাধারণ ভোটারদের কোনও উপকার হবে না।

তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, বাংলা থেকে প্রচুর শ্রমিক কাজের জন্য বিজেপি শাসিত রাজ্য়ে চলে যান। সেক্ষেত্রে সেই রাজ্যের উন্নতি দেখে তারা প্রভাবিত হতে পারেন। সেকারণেই কি আপত্তি তুলছে তৃণমূল? তবে এর আগেও একাধিক বিরোধী দল মিটিং করে এই ধরনের রিমোট ভোটিংয়ের প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছিলেন। এবার তৃণমূলও এনিয়ে ঘোর আপত্তি তুলল।

 

বন্ধ করুন