বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > সেক্সটরশনে এবার নয়া কৌশল, অশ্লীল ভিডিয়ো কলের পর ফোন করছেন ‘আইপিএস’

সেক্সটরশনে এবার নয়া কৌশল, অশ্লীল ভিডিয়ো কলের পর ফোন করছেন ‘আইপিএস’

সেক্সটরশন নয়া ফাঁদ

ওই ইউটিউবারকে ফোন করলে তিনি জানান, ইউটিউব থেকে ওই ভিডিয়ো ডিলিট করতে হলে ২১ হাজার ৫০০ টাকা পেমেন্ট করতে হবে। ২১ হাজার টাকা রিফান্ড পেয়ে যাবেন। তখন ওই যুবক প্রথমে ২০ হাজার টাকা পেমেন্ট করেন। কিন্তু প্রতারকরা বলে, সাড়ে ২১ হাজার টাকাই দিতে হবে। কথামতো বাকি টাকাও পাঠিয়ে দেন তিনি। এরপর আসে তৃতীয় ফোন। 

প্রথমে একটি ‘হাই’ লেখা হোয়াটসঅ্যাপ। যে প্রোফাইলে রয়েছে সুন্দরী যুবতীর ছবি। কিন্তু সেখানে পাল্টা ‘হ্যালো’ লিখলেই পড়তে হবে ফাঁদে। সঙ্গে সঙ্গে যুবতীর নগ্ন ভিডিয়ো কল আসবে মোবাইলে। তারপর নয়াদিল্লি থেকে ফোন আসতে শুরু করবে এক ‘আইপিএস অফিসার’–এর। এটা অবশ্য ভুয়ো পরিচয়। কিন্তু সেটা যতক্ষণে একজন বুঝবেন ততক্ষণে খেলা জমে ক্ষীর। কারণ ‘আইপিএস অফিসারের’ কথা সহজেই বিশ্বাস করছেন মানুষ। আর চক্রে জড়িয়ে পড়ছেন।

ঠিক কী বলছেন ভুয়ো আইপিএস?‌ ওই ‘ভুয়ো’ আইপিএস ফোন করে বলছেন, ‘যে যুবতী আপনাকে নগ্ন ভিডিয়ো কল করেছিল, সেটি আসলে প্রতারণা চক্র। যুবতীকে গ্রেফতার করা হয়েছে’। এরপরই আসছে টাকা হাতানোর গল্প। কখনও ইউটিউব চ্যানেল থেকে সেই ভিডিয়ো ডিলিট করার জন্য, কখনও আবার দিল্লি হাইকোর্টে মামলার খরচ চালানোর জন্য টাকা চাওয়া হচ্ছে। এমনকী টাকা পাঠাতে দেরি করলে হাইকোর্টের ভুয়ো সমন পাঠাচ্ছে তারা। এখন একজন আইপিএস অফিসার সেজে টাকা আদায় করা হচ্ছে। এটাই নয়া ফাঁদ বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ সাইবার ক্রাইম দফতরের দাবি, সেক্সটরশন নতুন কিছু নয়। এখন টাকা চাওয়ার পদ্ধতিতে বদল করেছে প্রতারকরা। বাগুইআটির এক যুবক এমন প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তিনি ২২ মে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানায় অভিযোগ করেন। তাঁর অভিযোগ অনুযায়ী, গত ১৯ মে রাতে তাঁর হোয়াটসঅ্যাপে হঠাৎ একটি মেসেজ আসে। তিনি খুলে দেখেন, এক যুবতী ‘হাই’ লিখে পাঠিয়েছেন। তিনিও উত্তরে ‘হ্যালো’ লেখেন। তারপরই যুবতী ভিডিয়ো কল করেন। নগ্ন অবস্থায় কামের আহ্বান। একইসঙ্গে দু’মিনিট কথাবার্তা হতেই তৈরি ফাঁদ।

তারপর ঠিক কী ঘটল?‌ বাগুইআটির যুবক পুলিশকে বলেন, ‘আপনি প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়েছেন। ওই যুবতীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ইউটিউবে ওই যুবতী ভিডিয়ো আপলোড করে দিয়েছে। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। এক ইউটিউবারের নম্বর দিচ্ছি। ওনার সঙ্গে কথা বলুন’। ওই ইউটিউবারকে ফোন করলে তিনি জানান, ইউটিউব থেকে ওই ভিডিয়ো ডিলিট করতে হলে ২১ হাজার ৫০০ টাকা পেমেন্ট করতে হবে। ২১ হাজার টাকা রিফান্ড পেয়ে যাবেন। তখন ওই যুবক প্রথমে ২০ হাজার টাকা পেমেন্ট করেন। কিন্তু প্রতারকরা বলে, সাড়ে ২১ হাজার টাকাই দিতে হবে। কথামতো বাকি টাকাও পাঠিয়ে দেন তিনি। এরপর আসে তৃতীয় ফোন। সেখানে বলা হয়, ওই তরুণীর তিনটি অ্যাকাউন্ট খুলেছিল। সবক’টি ডিলিট করতে হলে আরও ৪৩ হাজার টাকা লাগবে। সেই টাকাও দেন যুবক। এবার আসে ‘ভুয়ো আইপিএস’ অফিসারের ফোন। তিনি বলেন, যুবতীর মামলাটি দিল্লি হাইকোর্টে উঠেছে। মামলার খরচ ৩১ হাজার ২০০ টাকা। সেটা পেমেন্ট করতে হবে। এতকিছুর পর ওই যুবক পুলিশের দ্বারস্থ হন। তবে, ওই ‘আইপিএস’ এখনও টাকা চেয়ে যাচ্ছেন।

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মীদের আন্দোলনের জেরে আটকে গেল বেতন 'ঔদ্ধত্য' ছেড়ে রোহিতের মন জয়ের চেষ্টা হার্দিকের? IPL-র আগে খুললেন মুখ অটোতে চাপিয়ে মহিলা যাত্রীকে নির্জন জায়গায় নিয়ে গেল চালক, ধর্ষণ করে খুন WBPSC-তে টেকনিক্যাল অফিসার পদে বিপুল নিয়োগ, আবেদন শুরু ১২ মার্চ থেকে লরির ধাক্কায় উলটে গেল দাঁড়িয়ে থাকা বাস, মৃত্যু যাত্রীর, আহত শিশুসহ ৩০ ব্যাঙ্কে ঢুকে তৃণমূল নেতার দাদাগিরি, ম্যানেজারকে ডাম্পার দিয়ে পিষে মারার হুমকি মুখে কাপড় বেঁধে রাস্তায় খুদেদের সঙ্গে গুলি খেললেন পন্ত! ভাইরাল ভিডিয়ো MRP-র অর্থ হল ‘মিনিমাম রিটেল প্রাইস’! রাহুলের কথায় হাসির রোল নেটপাড়ায়- ভিডিয়ো সন্দেশখালিতে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির কাছে মহিলারা বারবার বললেন শিবু হাজরার কথা বিকশিত ভারত ২০৪৭: আগামী ৫ বছরের দিশা তৈরি করতে মন্ত্রীদের নিয়ে বৈঠকে মোদী

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.