বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Sovandeb Chatterjee: আমাকে ব্যবহার করে কেউ নিজের সম্পদ বাড়াক এটা আমি চাই না, বললেন শোভনদেব
শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। নিজস্ব চিত্র

Sovandeb Chatterjee: আমাকে ব্যবহার করে কেউ নিজের সম্পদ বাড়াক এটা আমি চাই না, বললেন শোভনদেব

  • রীতিমতো ক্ষুব্ধ শোভনদেব বলেন, ‘আমার বাবা আমাকে বিধায়ক মন্ত্রী করেননি। আমার দল করেছে মানুষ করেছে’।

ফের একবার তৃণমূলের মঞ্চে দাঁড়িয়ে দুর্নীতি নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। সোমবার ভাইরাল এক ভিডিয়োয় মন্ত্রীকে বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘আমাকে ব্যবহার করে কেউ নিজের সম্পদ বাড়াক এটা আমি চাই না।’ সঙ্গে জনতাকে তাঁর প্রশ্ন, ‘আমাদের ভোট দেবেন আর খেয়াল রাখবেন না আমি কেমন আছি?’

ভাইরাল ভিডিয়োয় শোভনদেব বাবুকে বলতে শোনা যায়, ‘আমি চাই না আমার গায়ে কেউ কালো দাগ ছিটিয়ে দিক। এত বছর আছি। আমার অনেক বয়স হয়েছে। মাথা উঁচু করে আছি। আর আমাকে ব্যবহার করে কেউ নিজের সম্পদ বাড়াক এটা আমি চাই না’।

জনগণকে তাঁর প্রশ্ন, ‘আমাদের ভোট দেবেন আর খেয়াল রাখবেন না আমি কেমন আছি? আমার কিছু ছিল না হঠাৎ অনেক কিছু হয়ে গেল? বাসের কন্ডাক্টর ছিলাম। হঠাৎ দেখা গেল ৫০ বিঘা জমির মালিক হয়ে গেলাম আমি? এটা হয়? কোথা থেকে আসবে? কে দিচ্ছে টাকা? কেন দেবেন টাকা’?

রীতিমতো ক্ষুব্ধ শোভনদেব বলেন, ‘আমার বাবা আমাকে বিধায়ক মন্ত্রী করেননি। আমার দল করেছে মানুষ করেছে’।

মাঝরাতের ‘বিভ্রান্তি’র পর ফের অভিষেক শ্যালিকাকে তলব ED-র, কখন যেতে হবে মেনকাকে?

শোভনদেব বাবুর বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে বিজেপি মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বলেন, ‘তৃণমূলের মতো রাজনৈতিক দলে শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বেমানান। উনি একজন ব্যতিক্রম। তাই তাঁকে লাভজনক মন্ত্রিত্ব হারাতে হয়েছে। শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় কী করে এই দলটায় আছেন? উনি যে প্রশ্নটা তুলেছেন সেটা অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক ও গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যারা রাজনীতি করি, যারা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। আমি কী ছিলাম, আমার অতীত কী? আমার পূর্বপুরুষ কী করতেন, আমার বাবা কী করতেন, সেটা কিন্তু সাধারণ মানুষের জানা উচিত।’

সিপিএম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘তৃণমূলে অনেকে আছেন যারা আত্মগ্লানিতে ভুগছেন। মনে মনে ভাবছেন, কী সর্বনাশ করে ফেলেছি। কোন দল তৈরি করলাম! কাদের নেতা বানালাম! যত বড় নেতা তত বড় চোর। এটা সবাই পছন্দ করছেন না। তৃণমূলের নেতা বলে হঠাৎ করে সম্পদ বেড়ে গেল, এটা হয় কখনও? হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটের পাশে ৩৫টা জমি, কী করে হচ্ছে?’

সম্প্রতি দলের অন্দরে দুর্নীতি নিয়ে একাধিকবার মুখ খুলেছেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এই নেতার মন্তব্যে দলের তরফে তেমন কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

 

বন্ধ করুন