বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > শহর থেকে জেলায় ৫০ লক্ষ টার্গেট, দুর্গাপুজোর আগেই দেদার টিকার নির্দেশ
আগামী পাঁচদিনের মধ্যে যাতে ৫০ লক্ষ ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শেষ করা যায় তার জন্য কড়া বার্তা দিল স্বাস্থ্য দফতর। ফাইল ছবি : ব্লুমবার্গ (Bloomberg)
আগামী পাঁচদিনের মধ্যে যাতে ৫০ লক্ষ ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শেষ করা যায় তার জন্য কড়া বার্তা দিল স্বাস্থ্য দফতর। ফাইল ছবি : ব্লুমবার্গ (Bloomberg)

শহর থেকে জেলায় ৫০ লক্ষ টার্গেট, দুর্গাপুজোর আগেই দেদার টিকার নির্দেশ

  • কারণ বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবে কেউ গৃহবন্দি হয়ে থাকবেন না। আর মানুষজন এই উৎসবের দিনে বেড়াতে যায়।

শহর থেকে জেলা আগেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিল রাজ্য সরকার। এবার দুর্গাপুজোর আগেই দেদার টিকা দেওয়া নিয়ে তৎপরতা শুরু করল রাজ্য সরকার। তাই বৃহস্পতিবার প্রত্যেকটি জেলায় আগামী পাঁচদিনের মধ্যে যাতে ৫০ লক্ষ ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শেষ করা যায় তার জন্য কড়া বার্তা দিল স্বাস্থ্য দফতর। কারণ বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবে কেউ গৃহবন্দি হয়ে থাকবেন না। আর মানুষজন এই উৎসবের দিনে বেড়াতে যায়। সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্যই এমন বাড়তি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এখনই বহু মানুষ রাস্তায় নেমে পড়েছেন। কেনাকাটা থেকে শুরু করে আড্ডা দেখা যাচ্ছে। রাজ্যজুড়ে একটা উৎসবের পরিবেশ দেখা দিয়েছে। তাই স্বাস্থ্য দফতর থেকে প্রত্যেকটি জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে প্রয়োজনীয় নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানতে চেয়েছেন পুজোর আগেই রাজ্যকে যে ভ্যাকসিন বরাদ্দ করা হয়েছে তা কী শেষ করতে পারা যাবে?

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক প্রশ্ন করতেই বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করা হয়। সেখানেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যতটুকু বাকি আছে তা পূরণ করে ফেলতে হবে। শহর থেকে জেলায় কাউকে টিকা থেকে বাদ রাখা যাবে না। পুজো নিয়ে ১১ দফা গাইডলাইন জারি করা হয়েছে। সূত্রের খবর, গাইডলাইন এবং কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে চলতে গেলে টিকা নিতেই হবে। মাস্ক পড়তেই হবে। এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিতে পারেন মুখ্যসচিব।

অনেকেই প্রথম ডোজের টিকা নিয়ে দ্বিতীয়টি নেননি। শহর থেকে গ্রামে একই চিত্র ধরা পড়েছে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, রাজ্যের মোট ৬ কোটি ৩ লক্ষ ৭০ হাজার ২০৯ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪ কোটি ৩০ লাখ ৮৪ হাজার ৯০ জনকে। দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ১ কোটি ৭২ লক্ষ ৮৬ হাজার ১১৯ জনকে। আগামী পাঁচদিনেও ৫০ লক্ষ ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রক্রিয়া শেষ করতে হলে এই গতি বজায় রাখতে হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন