বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > সুব্রত 'আমার হাতে নাড়ু খেতে চেয়েছিল, বলেছিলাম ভাইফোঁটার দিন…' কেঁদে ফেললেন বোন
বিধানসভায় সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মরদেহ।
বিধানসভায় সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মরদেহ।

সুব্রত 'আমার হাতে নাড়ু খেতে চেয়েছিল, বলেছিলাম ভাইফোঁটার দিন…' কেঁদে ফেললেন বোন

  • কথাটা শেষ করার আগেই ঝোরঝোর করে কেঁদে ফেলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বোন।

'দাদা, আমার হাতে নাড়ু খেতে চেয়েছিল, বলেছিলাম ভাইফোঁটার দিন...'। কথাটা শেষ করার আগেই ঝোরঝোর করে কেঁদে ফেললেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বোন বুলবুল চট্টোপাধ্যায়।

ভাইফোঁটার ঠিক আগের হাতে এসএসকেএম থেকে ফেরার কথা ছিল সুব্রতের। সেইমতো কথা হয়েছিল তাঁর সঙ্গে। কিন্তু ফেরা হয়নি ৭৫ বছরের পঞ্চায়েতমন্ত্রীর। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পরপর দুটি ‘কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট’ হয়। দ্রুত তাঁকে স্থানান্তর করা হয় আইসিসিইউতে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। রাত ৯ টা ২২ মিনিটে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন পঞ্চায়েতমন্ত্রী। সেই খবর পাওয়ার পরই চলে আসেন সুব্রতের বোনরা।

শুক্রবার সকালে সুব্রতের বোন তনিমা চট্টোপাধ্যায় জানান, ‘ভাইফোঁটার আগেরদিন ফেরার কথা ছিল। তিন বোনের আসার কথা ছিল। ফোঁটা দেব বলেছিলাম। পরে খাওয়ার কথা বলে এসেছিলাম।’ কিন্তু সেই পরিকল্পনা অপূর্ণ থেকে গিয়েছে। দাদা যে আর বাড়ি ফেরেননি। আলোর উৎসবের দিন অন্ধকার নেমে আসে বুলবুল, তনিমাদের জীবনে।

সুব্রতের প্রয়াণে ভেঙে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তিনি বলেন, ‘জীবনে অনেক দুর্যোগ দেখেছি। কিন্তু সুব্রতদার মৃত্যুটা আমার কাছে ভীষণ-ভীষণ বড় দুর্যোগ। সুব্রতদার মতো মানুষ, এত হাসিখুশি মানুষ, এত কর্মঠ মানুষ, পার্টি অন্ত প্রাণ, বিধানসভা অন্ত প্রাণ - আর হবে কিনা, সন্দেহ আছে। আমি গোয়া থেকে ফিরেই হাসপাতালে আসি। সেদিনও আমার সঙ্গে কথা হল। হাসল। বলল, আমি আবার জেলায় জেলায় যাব। আজ সন্ধ্যায় আমার বাড়ির কালীপুজোয় গিয়েছিলেন এখানকার প্রিন্সিপাল। আমি জিজ্ঞাসা করলাম। বললেন যে এখন ভালো আছেন, কাল ছেড়ে দেওয়া হবে। তারমধ্যে বিরাট হার্ট অ্যাটাক হল। চিকিৎসকরা সাধ্যমতো চেষ্টা করেছেন। কিন্তু পারেননি।'

বন্ধ করুন