বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > কেন্দ্র টাকা পাঠাবে আর লুঠ করে, চুরি করে খাবো, এ তো চলতে পারে না: সুকান্ত
বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Saikat Paul)

কেন্দ্র টাকা পাঠাবে আর লুঠ করে, চুরি করে খাবো, এ তো চলতে পারে না: সুকান্ত

  • সুকান্ত মজুমদারের পালটা অভিযোগ, ‘মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রের ঘাড়ে সব দায় দিয়ে নিজে সরে পড়তে চান। কেন্দ্র টাকা পাঠাবে আর লুঠ করে, চুরি করে খাবো, এ তো চলতে পারে না। কেন্দ্রের টাকা নিতে হলে যে প্রকল্পে যা নাম সেই নামেই নিতে হবে’।

কেন্দ্রীয় বঞ্চনার অভিযোগ তুলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিল্লি অভিযানের হুঁশিয়ারিকে কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘কেন্দ্র টাকা পাঠাবে আর লুঠ করে, চুরি করে খাবো, এ তো চলতে পারে না।’

এদিন সুকান্তবাবু বলেন, ‘ওনার যত ইচ্ছা দিল্লিতে আসতে পারেন। ওনাকে দিল্লিতে স্বাগত জানাই। এটা তো আর পশ্চিমবঙ্গ নয় যে গেলে ঢিল পাটকেল মারবে। উনি যান, আমাদের কোনও সমস্যা নেই। আমরাও পালটা তৃণমূলের প্রধান ও পঞ্চায়েত সদস্যদের বাড়ির ছবি নিয়ে মানুষের কাছে যাব। আর তাদের বোঝাবো যে দিল্লি থেকে আসা টাকা আসলে কোথায় গেছে। সেই প্রধানদের বাড়ি ঘেরাও করে টাকাটা উসুল করে নিতে বলব’।

সুকান্ত মজুমদারের পালটা অভিযোগ, ‘মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রের ঘাড়ে সব দায় দিয়ে নিজে সরে পড়তে চান। কেন্দ্র টাকা পাঠাবে আর লুঠ করে, চুরি করে খাবো, এ তো চলতে পারে না। কেন্দ্রের টাকা নিতে হলে যে প্রকল্পে যা নাম সেই নামেই নিতে হবে’।

কেন্দ্রীয় প্রকল্পের নাম বদল নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি খণ্ডন করে সুকান্তবাবু বলেন, ‘দিল্লির প্রকল্পের নাম বাংলার মানুষ বুঝতে পারে না বলে দাবি করে আপনি প্রকল্পের নাম পরিবর্তন করছেন। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা, এর মধ্যে কোন শব্দটা বাংলার মানুষ বুঝতে পারে না যে জন্য আপনাকে প্রকল্পের নাম বদলে বাংলার আবাস যোজনা করতে হল?

কেন্দ্রীয় সরকার নির্দিষ্ট সময়ে টাকা পাঠিয়েছে। কিন্তু সেই টাকার হিসাব রাজ্য সরকার দিতে পারেনি। প্রচুর দুর্নীতির হয়েছে।’

 

বন্ধ করুন