বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ডেঙ্গি নিয়ে রাজ্য সরকার তৎপর না হলে হেস্তনেস্ত করার হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

ডেঙ্গি নিয়ে রাজ্য সরকার তৎপর না হলে হেস্তনেস্ত করার হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

শুভেন্দু অধিকারী।

বিরোধী দলনেতার দাবি, ‘রাজ্য জুড়ে ডেঙ্গি ছড়াচ্ছে আর মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর প্রশাসন ছুটি কাটাচ্ছেন। দুয়ারে সরকারের নামে পঞ্চায়েতের ভোট প্রস্তুতি নিচ্ছেন। অসত্য কথা বলছেন। আর বিজয়া সম্মিলনীর নামে সরকারের কোটি কোটি টাকা ধ্বংস করছেন।

রাজ্যের ডেঙ্গি পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। শুক্রবার এক সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘রাজ্য জুড়ে ডেঙ্গি ছড়াচ্ছে আর মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর প্রশাসন ছুটি কাটাচ্ছেন। দুয়ারে সরকারের নামে পঞ্চায়েতের ভোট প্রস্তুতি নিচ্ছেন। অসত্য কথা বলছেন।’

এদিন শুভেন্দুবাবু বলেন, ‘রাজ্যে ডেঙ্গি আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজারের কাছে পৌঁছেছে। কয়েক লক্ষ পরীক্ষা হয়নি। মৃত্যুর মিছিল চলছে রাজ্যজুড়ে। সরকারি - বেসরকারি হাসপাতালগুলো ডেঙ্গি আক্রান্তয় ভরে গিয়েছে। রাজ্য সরকারের কোনও রকম হেলদোল নেই’।

বিরোধী দলনেতার দাবি, ‘রাজ্য জুড়ে ডেঙ্গি ছড়াচ্ছে আর মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর প্রশাসন ছুটি কাটাচ্ছেন। দুয়ারে সরকারের নামে পঞ্চায়েতের ভোট প্রস্তুতি নিচ্ছেন। অসত্য কথা বলছেন। আর বিজয়া সম্মিলনীর নামে সরকারের কোটি কোটি টাকা ধ্বংস করছেন। সাধারণ লোক ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হচ্ছেন, এবং মৃত্যুর মিছিল শুরু হয়েছে’।

শুভেন্দুবাবুর অভিযোগ, ‘অন্য রাজ্যে কেন ডেঙ্গি বা মশাবাহিত রোগ ছড়াচ্ছে না? তার কারণ অন্য রাজ্যগুলো প্রধানমন্ত্রীর নমামি গঙ্গে প্রকল্পের সুবিধা নিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ সেই সুবিধা নেয়নি’।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘এছাড়া রাজ্যে কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার হাল খুব খারাপ। অন্যান্য রাজ্যে এটা ১০০ শতাংশে পৌঁছলেও পশ্চিমবঙ্গ তার ধারেকাছে পৌঁছতে পারেনি। ফলে কয়েকদিন আগে ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনাল পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে ফাইন করেছে। আপনারা দক্ষিণেশ্বরের কাছে দক্ষিণ দমদম পুরভার ভ্যাট দেখলেই বুঝতে পারবেন। ওটাই ডেঙ্গির আড়ৎ।

আজ আমি কলকাতা পুরসভার কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু কমিশনার সময় দিতে পারেননি। টক টু মেয়র নিয়ে তারা ব্যস্ত।

আমাদের দাবি, সরকার যুদ্ধকালীন তৎপরতায় মশার সমস্ত উৎস ধ্বংস করুক। সমস্ত সরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গির জন্য আলাদা সেন্টার তৈরি করুক। ডেঙ্গির চিকিৎসার দায়িত্ব সরকার নিক। যারা আতঙ্কিত হয়ে বেসরকারি হাসপাতালে যাচ্ছেন তাদের চিকিৎসার খরচ সরকার দিক। এছাড়া পুরসভা থেকে পঞ্চায়েত সর্বত্র ডেঙ্গি পরীক্ষার ব্যবস্থা করুক সরকার। ২ দিনের মধ্যে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আমাদের কাউন্সিলররা কমিশনারের দফতরের সামনে ধরনা দেবেন’।

 

বন্ধ করুন