বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মাধ্যমিক–উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার আগে দিতে হবে টেস্ট, সংসদে দাবি শিক্ষকদের
টেস্ট আবার যাতে নেওয়া হয় তার জন্য দাবি তুলেছেন শিক্ষক–শিক্ষিকারা।
টেস্ট আবার যাতে নেওয়া হয় তার জন্য দাবি তুলেছেন শিক্ষক–শিক্ষিকারা।

মাধ্যমিক–উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার আগে দিতে হবে টেস্ট, সংসদে দাবি শিক্ষকদের

  • এভাবেই সকল ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ণ করা যেত।

করোনাভাইরাসের জেরে পঠন–পাঠন লাটে উঠেছিল। ফলে আগের টেস্টের নম্বর দেখেই মাধ্যমিক–উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল ছাত্রছাত্রীরা। সেই টেস্ট আবার যাতে নেওয়া হয় তার জন্য দাবি তুলেছেন শিক্ষক–শিক্ষিকারা। কারণ মাধ্যমিক–উচ্চমাধ্যমিকের আগে যে টেস্ট নেওয়া হতো তাতে বোঝা যেত একজন ছাত্র বা ছাত্রী বোর্ডের পরীক্ষা দিতে কতটা প্রস্তুত। এভাবেই সকল ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ণ করা যেত। এবার একাধিক স্কুলের প্রধানশিক্ষক এবং শিক্ষক সংগঠনগুলির বক্তব্য, ২০২০ সালের মতো এবারেও যদি উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল হয়ে যায় তাহলে টেস্টের নম্বরের ভিত্তিতে পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা যাবে। তাই টেস্ট নেওয়ার ব্যবস্থা হোক। আর তা স্কুলে এসেই দিতে হবে।

এদিকে আগামী ১৬ নভেম্বর থেকে রাজ্যে স্কুল খুলে যাচ্ছে। নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীরা স্কুলে যেতে পারবে। আবার সম্প্রতি মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় জানান, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে স্কুলগুলিকে ডিসেম্বর মাসের শেষে মাধ্যমিকের টেস্ট নিতে বলা হবে। এই দুটি বিষয় কাকতালীয়ভাবে মিলে যেতেই দাবি তোলেন শিক্ষক–শিক্ষিকারা।

শিক্ষক সংগঠনের একাংশ চাইছে, মাধ্যমিক–উচ্চমাধ্যমিক স্কুলগুলিতে টেস্ট নেওয়ার নির্দেশ দিক সংসদ। আর সেটা হোক অফলাইনেই। অর্থাৎ স্কুলে এসে পরীক্ষা দিতে হবে। এই বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ প্রধান শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণাংশু মিশ্র বলেন, ‘‌স্কুলগুলিকে টেস্ট নিতে বাধ্য করুক সংসদ। যদি আবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা না হয়, তাহলে ওই টেস্টের মূল্যায়ন কাজে আসবে।’‌

এই বিষয়ে বেশ কয়েকজন শিক্ষক–শিক্ষিকার বক্তব্য, এবার যারা উচ্চমাধ্যমিক দিতে চলেছে তারা গত দু’বছরে তারা কোনও পরীক্ষাই দিতে পারেনি। কারণ করোনাভাইরাসের জেরে কোনও পরীক্ষাই হয়নি। তারা শেষ পরীক্ষা দিয়েছে মাধ্যমিক। তাই উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় বসার আগে অফলাইনে টেস্টে হবে। তাতে উপকার ওদেরই।

বন্ধ করুন