বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মিউকরমাইকোসিসে কী কী ওষুধ দিতে হবে?রাজ্যকে নির্দেশিকা কেন্দ্রের
মিউকরমাইকোসিসে কী ওষুধ ব্যবহার করতে হবে রাজ্যকে নির্দেশিকা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের: ‌ছবিটি প্রতীকী (‌ সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)‌ (Pratham Gokhale/HT Photo)
মিউকরমাইকোসিসে কী ওষুধ ব্যবহার করতে হবে রাজ্যকে নির্দেশিকা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের: ‌ছবিটি প্রতীকী (‌ সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)‌ (Pratham Gokhale/HT Photo)

মিউকরমাইকোসিসে কী কী ওষুধ দিতে হবে?রাজ্যকে নির্দেশিকা কেন্দ্রের

স্বাস্থ্যমন্ত্রক সংশ্লিষ্ট ওই নির্দেশিকায় জানিয়েছে, মোট তিন ধরনের ওষুধ এই রোগের ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে।

করোনা আক্রান্ত রোগীরা যদি মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হন, সেক্ষেত্রে কীভাবে চিকিৎসা করা হবে, এই সংক্রান্ত বিষয়ে রাজ্যকে আগেই একটা নির্দেশিকা পাঠিয়েছিল স্বাস্থ্য মন্ত্রক। এবার এই চিকিৎসায় কী কী ওষুধ ব্যবহার করতে হবে, রাজ্যকে এই ওষুধসংক্রান্ত নির্দেশিকা দিল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। 

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে মিউকরমাইকোসিস চিকিৎসায় গঠিত জয়েন্ট টাস্ক ফোর্স এই নির্দেশিকা পাঠিয়েছে। এই যৌথ টাস্ক ফোর্সে রয়েছেন নীতি আয়োগের সদস্য চিকিৎসক বিনোদ পাল ও আইসিএমআরের ডিরেক্টর জেনারেল বলরাম ভার্গব।

ওষুধ ব্যবহারের এই নির্দেশিকায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, প্রয়োজনে রাজ্যকে সব ধরনের সাহায্য করতে প্রস্তুত রয়েছে কেন্দ্র। স্বাস্থ্য মন্ত্রক সংশ্লিষ্ট ওই নির্দেশিকায় জানিয়েছে, মোট তিন ধরনের ওষুধ এই রোগের ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। সেগুলো হল, অ্যাম্ফোটেরিসিন বি (লিপিড কমপ্লেক্স), অ্যাম্ফোটেরিসিন বি (লাইপোজোমাল) ও অ্যাম্ফোটেরিসিন বি (ডিঅক্সলেট)‌।

যদি কোনও কারণে এই ওষুধ না পাওয়া যায় বা রোগীর শরীরে সেটি কাজ না করে, সেক্ষেত্রে এর বদলে কোন ওষুধ ব্যবহার করা যাবে, তাও ওই নির্দেশিকায় জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। মন্ত্রক ওই নির্দেশিকায় জানিয়েছে, অ্যাম্ফোটেরিসিন বি যদি বাজারে পাওয়া না যায়, বা কোনও রোগীর শরীরে এই ওষুধ কাজ না করে, সেক্ষেত্রে রোগের মোকাবিলা করতে ‘‌পোস্যাকোনাজোল’‌ ইঞ্জেকশনও ব্যবহার করতে পারেন চিকিৎসকরা।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, এর আগে মিউকরমাইকোসিস চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যাম্ফোটেরিসিন বি (লাইপোজোমাল)‌’‌র সরবরাহ নিয়ে সংকট দেখা দিয়েছিল। সেকারণে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য এই ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয় স্বাস্থ্য দফতর।আরও জানা গিয়েছে, আগামী দু’‌মাসে ৪০০ রোগীর হিসাব করে এই তিন ধরনের ওষুধ কিনে রেখেছে স্বাস্থ্য দফতর।

বন্ধ করুন