বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌দলের পতাকা পুড়িয়ে তো ভোট পাওয়া যাবে না’‌, ওয়ার্ডে দাঁড়িয়ে জবাব রত্নার
রত্না চট্টোপাধ্যায়

‘‌দলের পতাকা পুড়িয়ে তো ভোট পাওয়া যাবে না’‌, ওয়ার্ডে দাঁড়িয়ে জবাব রত্নার

  • তখন থেকে তিনিই দেখভাল করছেন। সেখানে পুরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে পতাকা ছিঁড়ে দেওয়ায় উত্তেজনা চরমে উঠেছে।

হাতে বেশি সময় নেই। আগামী ১৯ ডিসেম্বর কলকাতা পুরসভার নির্বাচন। জোরকদমে চলছে প্রচার। এবার তৃণমূল কংগ্রেসের ১৩১ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের এলাকায় উঠল পতাকা ছিঁড়ে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ। এই ঘটনাকে নিয়ে এখন শোরগোল পড়ে গিয়েছে। রত্না চট্টোপাধ্যায় এখন বিধায়ক। তার উপর এই ওয়ার্ড ছেড়ে দেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তখন থেকে তিনিই দেখভাল করছেন। সেখানে পুরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে পতাকা ছিঁড়ে দেওয়ায় উত্তেজনা চরমে উঠেছে।

আজ, বৃহস্পতিবার সকালে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা দেখেন দলের পতাকা ছিঁড়ে দিয়েছে কেউ বা কারা। তা রাস্তায় পড়ে গড়াগড়ি খাচ্ছে। এমনকী অভিযোগ, সেখানে বেশ কিছু পোড়া পতাকাও মিলেছে। এই ঘটনা নিয়েই পল্লিশ্রী পল্লিতে উত্তেজনা ছড়ায়। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের হোর্ডিং পর্যন্ত ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

এই বিষযে রত্না চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‌আমরা শান্তিপূর্ণ ভোট করতে চাইছি। এটাই নির্দেশ দলের। সেখানে আমরা কোনও প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত আক্রমণ করছি না। দলের পতাকা পুড়িয়ে তো আর ভোট পাওয়া যাবে না। আমাদের এখানে ক্ষমতা বেশি, সারা বাংলায় ক্ষমতায় বেশি, কিন্তু আমরা তো এখানে এমনটা করছি না। বামপন্থীরা এই কাজটা করেছেন। আমি অনুরোধ করব বামপন্থী প্রার্থীকে এই কাজ যেন তাঁরা না করেন। আমি থানায় একটা অভিযোগ করব।’‌

যদিও রত্নার অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিপিআইএম প্রার্থী রঞ্জন দাশগুপ্ত বলেন, ‘‌আমি অভিযোগটা শুনেছি। আমি এলাকায় গিয়েছিলাম। আমার কর্মীদের সঙ্গে কথাও বলেছি। আমাদের দলের কোনও কর্মীই এই কাজ করেননি। আমরা এই ধরনের সংস্কৃতিতে বিশ্বাসী নই। তবে আরও বিশদে খোঁজ নেব।’‌ তাহলে এই কাজ কী বিজেপি করল?‌ এখনও উত্তর অজানা।

বন্ধ করুন