বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Abhishek Banerjee on Panchayat Election: তৃণমূল কারও করে খাওয়ার জায়গা নয়, কড়া বার্তা অভিষেকের
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

Abhishek Banerjee on Panchayat Election: তৃণমূল কারও করে খাওয়ার জায়গা নয়, কড়া বার্তা অভিষেকের

  • তিনি জানান, ‘‌এই তৃণমূল বিশুদ্ধ লোহার মতো। যত তাতাবে তত শক্তিশালী হবে। যারা দু-চারজনকে ভাঙিয়ে নিয়ে ভেবেছিল, তৃণমূলকে বাংলা ছাড়া করব, তাঁদের উদ্দেশ্য সফল হয়নি।

‌পরের বছর পঞ্চায়েত ভোট। এখন থেকেই দলীয় স্তরে জোরকদমে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে তৃণমূল। বৃহস্পতিবার একুশের মঞ্চ থেকে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে মুখ খুলতে দেখা গেল তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। দলের নেতা–কর্মীদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিয়ে অভিষেক বলেন, ‘‌তৃণমূল কিন্তু কারো করে খাওয়ার জায়গা নয়। টিকাদারি করলে তৃণমূল করা যাবে না।’‌

এদিন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় যখন একুশের মঞ্চে বক্তৃতা দিতে ওঠেন, তখন অঝোরে বৃষ্টি পড়ছে। ছাতা মাথায় দিয়েই বক্তৃতা শুরু করলেন অভিষেক। এরপর উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে অভিষেক জানান, ‘‌কারোর তো মুখই দেখতে পাচ্ছি না। আপনারা কী চান, আমি ছাতা সরিয়ে বলব?‌ আমি ছাতা সরালে কিন্তু আপনাদেরও ছাতা সরাতে হবে।’‌ এরপর আর দেরি করেননি অভিষেক। বক্তৃতা শুরু করেন ছাতা মাথায় না দিয়েই। শুরুতেই অভিষেক জানান, ‘‌বৃষ্টি আমাদের কাছে শুভ। বৃষ্টি যখনই হয়েছে, বিরোধীরা ধরাশায়ী হয়ে গেছে।’‌ 

এদিন বিরোধীদের ধরাশায়ী করার ডাক দিয়ে দলীয় নেতা–কর্মীদের কড়া বার্তা দিয়ে অভিষেক জানান, ‘‌আজকের তৃণমূল অন্য তৃণমূল। এই তৃণমূলে কোনও মীরজাফর নেই। গদ্দার নেই। ধান্দাবাজ নেই। এই তৃণমূল কংগ্রেস করতে গেলে মানুষকে প্রাধান্য দিতে হবে। তৃণমূল কংগ্রেস নিজের করে খাওয়ার জায়গা নয়।’‌

একইসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌তৃণমূল করতে গেলে দলীয় অনুশাসন মেনে করতে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শকে মেনে চলতে হবে। তৃণমূল করতে গেলে নির্ভীক, নির্ভয়ে, নির্লোভে করতে হবে যাতে মানুষ আগামীদিনে পরিষেবা পায়।’‌ তিনি জানান, ‘‌যদি কেউ ভাবেন, ‘‌দাদা’‌–র জলের বোতল বইয়ে পঞ্চায়েত টিকিট পাব, তাহলে ভুল ভাবছেন। মানুষ যদি আপনাকে সার্টিফিকেট দেয়, তবেই আপনি টিকিট পাবেন। যত বড় নেতার ছত্রছায়া থাকুন না কেন, দল আপনাকে টিকিট দেবে না।’‌

একইসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌এই তৃণমূল বিশুদ্ধ লোহার মতো। যত তাতাবে তত শক্তিশালী হবে। যারা দু-চারজনকে ভাঙিয়ে নিয়ে ভেবেছিল, তৃণমূলকে বাংলা ছাড়া করব, তাঁদের উদ্দেশ্য সফল হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভাঙা পায়ে লড়াই করেও তৃণমূলকে জিতিয়েছে। আজকের তৃণমূল কোচবিহার থেকে কাকদ্বীপের মধ্যেই শুধুমাত্র সীমাবদ্ধ নয়। তৃণমূল মেঘালয়ে ঢুকেছে। তৃণমূল ত্রিপুরায় ঢুকেছে। তৃণমূল অসমে ঢুকেছে। তৃণমূল গোয়ায় ঢুকেছে। যতদিন না পর্যন্ত তৃণমূলকে সর্বভারতীয় স্তরে পৌঁছে দিতে পারছি, আমি নিঃশ্বাস নেব না। যত দূর যেতে হয় যাব। রক্ত দিয়ে বুক চিতিয়ে লড়াই করতে প্রস্তুত আছি।’‌

বন্ধ করুন