বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > নেতাজি জন্মজয়ন্তী কমিটিতে নেওয়া হল না বিজেপির কোনও সদস্যকে
নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু। 
নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু। 

নেতাজি জন্মজয়ন্তী কমিটিতে নেওয়া হল না বিজেপির কোনও সদস্যকে

  • বর্ষব্যাপী কর্মসূচি পালনের জন্য গঠিত নেতাজি জন্মজয়ন্তী কমিটিতেও তাঁরা নিজেদের অন্তর্ভুক্ত থাকার অঙ্গীকার করলেন।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এক–মঞ্চে বিজেপি বাদে শামিল হল রাজ্যের শাসক–বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। আর বর্ষব্যাপী কর্মসূচি পালনের জন্য গঠিত নেতাজি জন্মজয়ন্তী কমিটিতেও তাঁরা নিজেদের অন্তর্ভুক্ত থাকার অঙ্গীকার করলেন। নেতাজির হাতে গড়া ফরওয়ার্ড ব্লকের উদ্যোগেই এই নজিরবিহীন ঘটনার সাক্ষী থাকল কলকাতা।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নামে কমিটিতে একসঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হলেন তৃণমূল, বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস নেতারা। বিজেপি’‌র বিরোধিতায় তাঁদেরও সুর এক্ষেত্রে এক। নেতাজির মতো ব্যক্তিত্বের স্মরণে ‘সাম্প্রদায়িক শক্তি’কে কোনও জমি ছাড়তে চান না বলে তাঁরা জানাচ্ছেন।

২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্মদিনের কর্মসূচিতেও সবপক্ষকে হাজির করানোর চেষ্টা সফল হলে তা রাজ্য–রাজনীতির সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে অন্যতম মাইলস্টোন হিসেবে চিহ্নিত হবে। নেতাজির ১২৫তম জন্মবার্ষিকী ঘটা করে পালন করার জন্য এবার ফরওয়ার্ড ব্লক নেতৃত্ব আগাম প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। প্রতিবারের মতো এবারেও তারা তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা নেতাজি জন্মজয়ন্তী কমিটিকে সামনে রেখেছে। সেই কমিটিকেই এই বছর বর্ধিত করে বর্ষব্যাপী কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মহাবোধি সোসাইটি হলে বর্ধিত কমিটি গঠন ও কর্মসূচি সংক্রান্ত প্রথম বৈঠকটি হয়। বৈঠকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে দলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও প্রাক্তন বিধায়ক নির্বেদ রায় হাজির ছিলেন।

নেতাজির নামে একটি নির্দিষ্ট স্মরণ–উদযাপনের জন্য এই কমিটি হলেও রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে দাঁড়িয়ে এমন উদ্যোগ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। মমতা জমানাতেই নেতাজি জয়ন্তী পালন ঘিরে শাসক তৃণমূলের সঙ্গে বিরোধী বামের সংঘাত হয়েছে অতীতে। তার পরেও বিজেপিকে দূরে রেখে সেই নেতাজির নামেই এক ছাতার তলায় আসা আরও অর্থবহ বলে মনে করা হচ্ছে।

বিরোধী দলনেতা কংগ্রেসের আব্দুল মান্নান ও অমিতাভ চক্রবর্তী, সিপিএমের সুজন চক্রবর্তী, ফরওয়ার্ড ব্লকের সাধারণ সম্পাদক দেবব্রত বিশ্বাস–সহ বিভিন্ন বাম দলের প্রতিনিধি নেতৃত্ব উপস্থিত থেকে উদ্যোগে তাঁদের সহমর্মিতা জানান। বর্ধিত কমিটির সভাপতি হয়েছেন শিক্ষাবিদ অমল মুখোপাধ্যায়। সাধারণ সম্পাদক পদে থাকছেন ফরওয়ার্ড ব্লকের বাংলা কমিটির প্রধান নরেন চট্টোপাধ্যায়। এছাড়া নির্বেদ–পার্থবাবুদের সঙ্গে বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্র, মনোজ ভট্টাচার্য, স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়, কার্তিক পাল, সমীর পুততুণ্ড, চণ্ডীদাস ভট্টাচার্য–সহ একঝাঁক বাম নেতা কমিটির পৃষ্ঠপোষকের তালিকায় ঠাঁই পেয়েছেন। এমনকী থাকছেন পূরবী রায়, চিত্রা ঘোষ, সৈয়দ নায়িমুদ্দিন, গৌতম সরকার, কল্যাণ সেন বরাট, অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়, আবুল বাশার সহ বিশিষ্ট ক্রীড়া, সাহিত্য, সংস্কৃতি জগতের মানুষ, বসু পরিবারের সদস্য ও নেতাজি গবেষকরা।

মুখ্যমন্ত্রীর সুরেই পার্থবাবু অভিযোগ করেছেন, বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য না জেনেই বিজেপি দখলদারির মনোভাব নিয়ে চলছে। আর ন‌রেনবাবু মনে করিয়ে দেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজির রেখে নেতাজি আজাদ হিন্দ ফৌজ গড়েছিলেন, দেশ গড়তে যোজনা কমিশনের পরিকল্পনা করেছিলেন। এইসব পরম্পরাই যে বিজেপি ধ্বংস করছে।

বন্ধ করুন