বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Abhishek Banerjee: কেষ্টর জেলার সব বিধায়ককে তলব করলেন অভিষেক, কেন এই জরুরি ডাক?‌

Abhishek Banerjee: কেষ্টর জেলার সব বিধায়ককে তলব করলেন অভিষেক, কেন এই জরুরি ডাক?‌

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়  (Saikat Paul)

এখন অনুব্রত মণ্ডল আসানসোল সংশোধনাগারে থেকেও পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন। সম্প্রতি তিনি আদালত চত্ত্বরে দাঁড়িয়ে দলের নেতা–কর্মীদের নির্দেশও দিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে বীরভূমের সব তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ককে ডেকে পাঠালেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

বছর ঘুরলেই পঞ্চায়েত নির্বাচন। তাই প্রত্যেক জেলাতেই বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই একাধিক জেলায় সফর করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু বীরভূম জেলার জেলা সভাপতি এখন জেলে। ফলে সেখানে আরও বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এখন অনুব্রত মণ্ডল আসানসোল সংশোধনাগারে থেকেও পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন। সম্প্রতি তিনি আদালত চত্ত্বরে দাঁড়িয়ে দলের নেতা–কর্মীদের নির্দেশও দিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে বীরভূমের সব তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ককে ডেকে পাঠালেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে তাঁর কলকাতার ক্যামাক স্ট্রিটের অফিসে ডাক পেয়েছেন জেলার ছাত্র, যুব, মহিলা এবং শ্রমিক সংগঠনের সভাপতিরাও। আগামী ২৬ নভেম্বর তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের অফিসে হাজির হতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর।

ঠিক কী বলছেন জেলার তৃণমূল কংগ্রেস নেতা?‌ এই বিধায়ক এবং অন্যান্য শাখার নেতা–কর্মীদের তলব নিয়ে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে। এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলা সহ–সভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘সব বিধায়ক এবং শাখা সংগঠনের নেতাদের ডাকা হয়েছে। এমনকী জেলার দুই সাংসদকেও ওই বৈঠকে ডাকা হয়েছে।’‌ এই বৈঠক যে পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তেমনটাই জানা গিয়েছে।

কেন এমন জরুরি তলব?‌ সূত্রের খবর, অনুব্রত মণ্ডল গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে সাংগঠনিক শক্তি কেমন রয়েছে তা জেনে নিতে চান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কারণ এখানে দুই সাংসদ–সহ আটজনের সমন্বয় কমিটি গড়ে দেওয়া হয়েছিল। যার মাথায় আছেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি বিকাশ রায়চৌধুরী। একটি শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি গড়ে তার মাথায় রাখা হয়েছে লাভপুরের বিধায়ক অভিজিৎ (রানা) সিনহাকে। সম্প্রতি অনুব্রত মণ্ডল আসানসোল আদালতের এজলাসে দাঁড়িয়ে দলের কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমার অনুপস্থিতিতে চাঁদু (মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা) আর বিকাশের কথা শুনে চলবি।’

আগে কী বলেছিলেন কেষ্ট?‌ বেশ কিছুদিন আগে অনুব্রত মণ্ডল এজলাসে দাঁড়িয়ে কর্মীদের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘‌আমি সব খবর রাখছি। দলের মধ্যে গ্রুপবাজি বরদাস্ত করব না। মনে রেখো, আমি কিন্তু চিরকাল জেলে থাকব না। যারা দলের মধ্যে গ্রুপবাজি করছে বেরিয়েই সব কটা’কে ছেঁটে দেব। পঞ্চায়েত নির্বাচন সামনেই। এখন থেকেই ভোটের কাজে নেমে পড়ো। সবাই এক হয়ে কাজ করবে।’ এই বার্তার ঠিক আগে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সীর চিঠি এসেছে বীরভূমের নির্বাচনী আধিকারিক তথা জেলাশাসকের কাছে। সেখানেই প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত হিসেবে অভিজিতের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

রামচরণকে ‘ইডলি’ ডাক শাহরুখের! ‘রেসিস্ট’ তকমা দিয়ে কিং খানকে তুলোধনা নেটপাড়ার পাকিস্তান সফরে যাবেন না গ্রিন! ভারতের বিরুদ্ধে গেমপ্ল্যান তৈরি করছে অস্ট্রেলিয়া ইজরায়েলে আছড়ে পড়া মিসাইলে নিহত ১ ভারতীয়, আহত ২, হামলার নেপথ্যে কারা? অর্ধেক টুর্নামেন্ট শেষে WPL-এর কমলা টুপি রয়েছে মন্ধনার মাথায়, দৌড়ে রয়েছেন কারা? তামিলনাড়ু হারতেই ক্যাপ্টেনের ওপর দায় চাপালেন কোচ, এসব কী চলছে, সরব কার্তিক অর্জুন সিংয়ের টিকিট ঠেকাতে পথে নামল সোমনাথ শ্যাম, ব্যারাকপুর জুড়ে তোলপাড় পথবাতিকে সঙ্গী করে পড়াশোনা চলছিল মেয়েটির, তিন ঘণ্টায় বিদ্যুৎ পৌঁছে দিলেন অরূপ নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করতে না পারলে বদলি, কড়া বার্তা দিল নির্বাচন কমিশনের ফুলবেঞ্চ নতুন করে ৪% DA বাড়ছে এই রাজ্য সরকারি কর্মীদের! টুইট করে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী স্বর্ণেন্দুকে রেজিস্ট্রি, নতুন ফ্ল্যাট! এবার ৫ বছরের জন্মদিন পালন ‘পাখি’ শ্রুতির

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.