বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বিধানসভায় অধিবেশন ডেকে কেন্দ্রের কৃষি বিলের বিরুদ্ধে প্রস্তাব আনা হবে:‌ মমতা
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

বিধানসভায় অধিবেশন ডেকে কেন্দ্রের কৃষি বিলের বিরুদ্ধে প্রস্তাব আনা হবে:‌ মমতা

  • ইতিমধ্যে কৃষকদের বিক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মমতা। সম্প্রতি তিনি সিঙ্ঘু সীমান্তে বিক্ষোভরত কৃষকদের কাছে তৃণমূল সাংসদদের একটি দলকে পাঠিয়েছিলেন। এমনকী ফোনে তিনি দিল্লিতে কৃষি বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী কৃষকদের সঙ্গে কথাও বলেন।

কৃষি বিল নিয়ে এবার কেরলের পথেই হাঁটতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। সোমবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, কেন্দ্রের তিনটি কৃষি বিলের বিরুদ্ধে বিধানসভায় প্রস্তাব আনতে চলেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল। তিনি এদিন বলেন, ‘‌আমরা এক বা দু’‌দিনের জন্য বিধানসভা অধিবেশনের আয়োজন করে কৃষি বিলগুলি প্রত্যাহারের জন্য একটি প্রস্তাব আনব। আমরা চেষ্টা করব যাতে এই প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে পাস হয়। আমি জানি বিজেপি এই প্রস্তাব সমর্থন করবে না। তবে আমার আশা, অন্য রাজনৈতিক দলগুলি এতে সমর্থন জানাবে।’‌

ইতিমধ্যে কৃষকদের বিক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মমতা। সম্প্রতি তিনি সিঙ্ঘু সীমান্তে বিক্ষোভরত কৃষকদের কাছে তৃণমূল সাংসদদের একটি দলকে পাঠিয়েছিলেন। এমনকী ফোনে তিনি দিল্লিতে কৃষি বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী কৃষকদের সঙ্গে কথাও বলেন।

এদিকে, পশ্চিমবঙ্গের কৃষকদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কিসান সম্মান নিধি কর্মসূচির আওতায় অর্থ বিতরণ নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের মধ্যে কোন্দল অব্যাহত রয়েছে। এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করে বলেছেন, ‘‌প্রধানমন্ত্রীর কিসান সম্মান নিধি কর্মসূচির আওতায় তহবিল না পাঠিয়ে কেন্দ্র পশ্চিমবঙ্গের কৃষকদের বঞ্চিত করছে।’‌

তিনি আরও বলেন, ‘‌আমি কেন্দ্রকে অনুরোধ করেছিলাম যাতে এই অর্থ রাজ্য সরকারের কাছে পাঠায়, তা হলে আমরা তা কৃষকদের মাঝে বিতরণ করে দিতে পারব। কিন্তু তারা রাজ্যকে এড়িয়ে সরাসরি কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে চায়। আমি কিছু দিন আগে কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রীকে ফোন করে জিজ্ঞাসা করেছি যে কেন রাজ্য সরকারকে বিশ্বাস করে না কেন্দ্র?‌’

যদিও রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব কটাক্ষ করে অভিযোগ করেছেন, সরাসরি কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা দিতে বাধা দিচ্ছে রাজ্য, তার পিছনে বিশেষ কারণ রয়েছে। কারণ, যদি টাকা কৃষকদের হাতে যায় তবে কাটমানি খেতে পারবেন না তৃণমূল নেতারা।

বন্ধ করুন