বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > দিল্লি থেকে সাংসদের ফিরতে বলল তৃণমূল, মুলতুবি হতে পারে সংসদের অধিবেশনও
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

দিল্লি থেকে সাংসদের ফিরতে বলল তৃণমূল, মুলতুবি হতে পারে সংসদের অধিবেশনও

  • সোমবার লোকসভায় পেশ হবে ২০২০-২০২১ অর্থবর্ষের ফিনান্স বিল। সেকারণে ওই দিন লোকসভায় হাতে গোনা কয়েকজন তৃণমূল সাংসদ বিতর্কে অংশগ্রহণ করতে পারেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে দেশজোড়া ‘জনতা কার্ফু’-র মধ্যেই দিল্লি থেকে দলের সমস্ত সাংসদকে ফিরে আসার নির্দেশ জারি করল তৃণমূল কংগ্রেস। রবিবার তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলীয় সাংসদদের এই নির্দেশ দিয়েছেন। সংসদে দ্বিতীয় বৃহত্তম বিরোধী দল তৃণমূল। দলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সোমবারের পর সংসদে যাবেন না কোনও তৃণমূল সাংসদ। ওদিকে সোমবারের পর সংসদের ২ কক্ষের অধিবেশনই মুলতুবি হয়ে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

তৃণমূলের তরফে সুদীপবাবু জানিয়েছেন, ‘আমরা মনে করি এই সময় সংসদের অধিবেশনে যোগদানের থেকেই সাংসদদের নিজের কেন্দ্রে থাকা বেশি দরকারি। নিজের কেন্দ্রে COVID 19-এর বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক প্রচার চালাবেন তাঁরা। তাই দলের সমস্ত সাংসদকে বাড়ি নিজের কেন্দ্রে ফিরে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

সোমবার লোকসভায় পেশ হবে ২০২০-২০২১ অর্থবর্ষের ফিনান্স বিল। সেকারণে ওই দিন লোকসভায় হাতে গোনা কয়েকজন তৃণমূল সাংসদ বিতর্কে অংশগ্রহণ করতে পারেন। রাজ্যসভায় সেই সম্ভাবনাও নেই। কারণ, দলের রাজ্যসভার নেতা ডেরেক ও’ ব্রায়েন নিজেই নিজেকে গৃহবন্দি রেখেছেন। রাজ্যসভায় ডেরেক বসেন বিজেপি সাংসদ দুষ্মন্ত সিংয়ের ঠিক পাশে। যে দুষ্মন্ত লখনউতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত গায়িকা কণিকা কাপুরের সঙ্গে পার্টি করেছিলেন। যদিও শনিবার দুষ্মন্ত জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন তিনি।

করোনাভাইরাসে যখন দেশ স্তব্ধ তখন কেন্দ্রীয় সরকারের সংসদ চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধীরা। যা নিয়ে সোমবার বিরোধী দলগুলির নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন স্পিকার ওম বিড়লা। ফিনান্স বিল পাশ হলে স্পিকার লোকসভার অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দিতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে সরকারের জারি করা নির্দেশিকা ভঙ্গ হচ্ছে সংসদের অধিবেশন জারি থাকলে


বন্ধ করুন