বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Tuberculosis in Kolkata: কলকাতায় বাড়ছে টিবি, মোকাবিলায় একগুচ্ছ নির্দেশ স্বাস্থ্য দফতরের

Tuberculosis in Kolkata: কলকাতায় বাড়ছে টিবি, মোকাবিলায় একগুচ্ছ নির্দেশ স্বাস্থ্য দফতরের

কলকাতায় বাড়ছে যক্ষ্মা।

২০২২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কলকাতায় টিবি আক্রান্তের সংখ্যা ১২, ৮২৯ জন। এছাড়া, মৃত্যু হয়েছে ২৭২ জনের। কলকাতার পরেই রয়েছে মুর্শিদাবাদ এবং উত্তর ২৪ পরগনা স্থান। এই পরিস্থিতিতে কলকাতায় টিবি আক্রান্তের সংখ্যা কমানোর উপরে জোর দিতে চাইছে কলকাতা পুরসভা।

গত কয়েক বছরে কলকাতায় টিবি বা যক্ষ্মা আক্রান্তের সংখ্যা কয়েকগুণ বেড়েছে।পরিস্থিতি এখন পর্যায়ে চলে গিয়েছে, যে অন্যান্য জেলাগুলি থেকে টিবি আক্রান্তের নিরিখে শীর্ষে হল কলকাতা। জানিয়ে উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দফতর। এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছে স্বাস্থ্য ভবন। তাতে টিবি রুখতে কী কী করণীয় সে বিষয়ে নির্দেশিকা দিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর। এই নির্দেশিকা মেনে চললে টিবি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য দফতর।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০২২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কলকাতায় টিবি আক্রান্তের সংখ্যা ১২, ৮২৯ জন। এছাড়া, মৃত্যু হয়েছে ২৭২ জনের। কলকাতার পরেই রয়েছে মুর্শিদাবাদ এবং উত্তর ২৪ পরগনা স্থান। এই দুই জেলাতেও টিবি আক্রান্তের সংখ্যা বেশি। এই পরিস্থিতিতে কলকাতায় টিবি আক্রান্তের সংখ্যা কমানোর উপরে জোর দিতে চাইছে কলকাতা পুরসভা। স্বাস্থ্য ভবনের তরফে কলকাতা পুরসভার কাছে যে নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে কলকাতা ১০টি জোনে ভাগ করতে হবে। তারপর প্রতিটি জোনে নজরদারি চালাতে হবে। বাড়ি বাড়ি স্বাস্থ্যকর্মীদের পাঠিয়ে মানুষকে টিবি সম্পর্কে সচেতন করতে হবে। কী কারণে টিভি হতে পারে? টিবি আক্রান্ত হলে কী করা উচিত? এবিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য আধিকারিকদের মতে, টিবি আক্রান্ত হলে প্রথমে অনেকেই তাতে বেশি গুরুত্ব দিতে চান না। ফলে পরবর্তী সময়ে এটি আরও বাড়তে থাকে। তাই টিভি আক্রান্তের সংখ্যা খুঁজে বের করাটা খুবই প্রয়োজন।

স্বাস্থ দফতরের আধিকারিকরা জানাচ্ছেন, ২০১৮ সালে যেখানে কলকাতায় টিবি আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৪৮৪০ জন, সেখানে ২০২২ সালে প্রায় তিনগুণ বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। তা নিয়ে উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দফতর। কলকাতা পুরসভাকে আগেই এই রোগের উৎসব খুঁজে বের করার জন্য সমীক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই মতো সমীক্ষাও শুরু করেছে কলকাতা পুরসভা। স্বাস্থ্যকর্তাদের মতে, রোগের উৎস চিহ্নিত করা গেলে সে ক্ষেত্রে রোগের মোকাবিলা করা সহজ হবে। স্বাস্থ্য আধিকারিকরা জানাচ্ছেন, মূলত অপুষ্টি, ধূমপান, কলকারখানায় কাজ এসবের জন্য টিবি বেশি হয়ে থাকে। এ নিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে হবে। তবেই টিবির বিরুদ্ধে মোকাবেলা করা যাবে।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

এখনই জলের ঘাটতি দেশের ৫৪০টি জেলা, এপ্রিল থেকে পড়বে তীব্র গরম! সতর্ক করল IMD সব আত্মহত্যা প্ররোচনার জেরে হয় না-সুপ্রিম কোর্ট ‘কাশীর ভাই-বোনদের সেবা করতে প্রস্তুত’, আনুষ্ঠানিক নাম ঘোষণার পর বললেন মোদী শ্রেয়স কিন্তু রঞ্জি খেলতে অস্বীকার করেননি-তারকা ব্যাটারের পাশে দাঁড়ালেন গাভাসকর গরুর গাড়ির সঙ্গে বাইকের ধাক্কা, মৃত্যু আইআইটি রুরকির ২ ছাত্রের আপনার শিশুর ওজন বেড়েই চলেছে! রোগে পড়ার আগে জেনে নিন মুক্তির উপায় জেনারেলের টিকিট কেটে AC কোচে কেন? 'মহিলাকে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দিলেন' TTE! স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে জালিয়াতি রুখতে এবার কাজে লাগানো হবে AI ‘তৃণমূলের জন্য দরজা এখনও খোলা’, ফের বললেন জয়রাম রমেশ ‘কেউ ভয় দেখাচ্ছে না তো’ রুট মার্চে বেরিয়ে জানতে চাইল কেন্দ্রীয় বাহিনী

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.